অনেকভাবে চেষ্টা করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। দারুণ প্রশংসা করলেন। 'চূড়ান্ত যোদ্ধা' সেই সঙ্গে 'অবিশ্বাস্য', 'দারুণ প্রতিভাবান', 'স্মার্ট' এবং 'ভেরি স্পেশাল' - প্রশংসাসূচক কোনও বিশেষণই বাদ দিলেন না। তাও কোনান-এর মন পেলেন না ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে পাত্তা না দিয়েও হোয়াইট হাউসে কিন্তু নায়কের সম্মান পেল  সে।

অনেকেরই হয়তো তাকে মনে নেই। কোনান, মার্কিন সেনাবাহিনীর কুকুর। বেলজিয়ান ম্যালিনয়েস প্রজাতির এই সারমেয়টিই গত মাসে উত্তর সিরিয়ায় আইআইএস জঙ্গিগোষ্ঠীর প্রধান আবু বকর আল বাগদাদি-কে ধরতে অন্যতম প্রধান ভূমিকা নিয়েছিল।

জানা গিয়েছিল, উত্তর সিরিয়ায় সেই জঙ্গি ঘাঁটিতে বাগদাদি-কে তাড়া করে কোনঠাসা করে ফেলেছিল কোনান ও মার্কিন সেনারা। তারপরই আত্মঘাতি বিস্ফোরণে নিজেকে ও স্ত্রীকে উড়িয়ে দিতে বাধ্য হয় বাগদাদি।

ওই দিনই তাড়া করার সময়, একটি বিদ্যুতের সংযোগ থাকা খোলা তার পায়ে জড়িয়ে গিয়ে আহত হয়েছিল সে। তাই এতদিন হোয়াইট হাউসে আসার সুয়োগ পায়নি। সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে এদিনই মার্কিন প্রেসিডেন্টের বাসভবনে এসেছিল সে।  

ট্রাম্প তার পরিচয় করিয়ে দিয়ে বলেন, 'এই হল কোনান। বর্তমানে, সম্ভবত বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত কুকুর'। এরপর কোনান-কে তার সাহসিতার জন্য একটি পদক ও শংসাপত্রও দেন। উপস্থিত ছিলেন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পও। তিনি কোনান-এর থেকে কিছুটা দূরে দূরেই থাকলেন।

তারপরেও মার্কিন প্রেসিডেন্টের প্রতি আগ্রহ জন্মায়নি কোনানের। বরং ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স-কে মনে ধরে তার। পেন্স সমানে কোনানের মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছিলেন। আর তাতে আরামে চোখ বন্ধ হয়ে আসছিল তার। হাত বোলানো থামালেই বারবার সে পেন্সের দিকে তাকিয়ে তাঁর মনোযোগ আকর্ষণ করার চেষ্টাও করে।