দিল্লির হিংসার ঘটনায় কি বিশ্বব্যাপী 'হিন্দুফোবিয়া' বা 'হিন্দুবিদ্বেষ'-এর ঢেউ বইতে শুরু করল? বৃহস্পতিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দৌড়ে থাকা ভারতীয় বংশোদ্ভূত রাজনীতিক তুলসী গ্যাবার্ড অন্তত তাই দাবি করলেন। বৃহস্পতিবার এই বিশিষ্ট ডেমোক্র্যাট নেত্রী এক টুইট করে দাবি করেছেন, দিল্লির দাঙ্গার একতরফা এবং ভূয়ো রিপোর্টিং-এ আমেরিকায় ক্রমেই হিন্দুবিদ্বেষ বাড়ছে।

ডাক্তার শেনি অম্বরদার নামে এক প্রবাসী ভারতীয় ডাক্তার টুইট করে আমেরিকায় হিন্দু বিদ্বেষের একটি ঘটনা শেয়ার করেছিলেন। গ্যাবার্ড সেই টুইটটি রিটুইট করেছেন। তাতে একজন মার্কিন উবার চালকের সঙ্গে জনৈক ভারতীয় বংশোদ্ভূত হিন্দুর কথোপকথনের কথা লেখা রয়েছে।

ওই ভারতীয় বংশোদ্ভূত হিন্দু সোশ্যাল মিডিয়ায় জানান, উবার চালক তাঁর ধর্মীয় এবং জাতিগত পরিচয়ের জন্যই তাঁকে নিশানা করেছিলেন। তিনি জানিয়েছেন উবার চালক দিল্লির হিংসার ঘটনার উল্লেখ করে বলেন, 'হিন্দুরা ভারতে মুসলমানদের হত্যা করছে, মসজিদ ধ্বংস করছে। ওই ভারতীয় জানিয়েছেন, জবাবে তিনি ওই উবার চালককে যুক্তি দেওয়ার চেষ্টা করেন যে দিল্লির হিংসায় হিন্দু-মুসলমান উভয় সম্প্রদায়ের মানুষই মারা গিয়েছেন।

কিন্তু, ভারতীয়ের সেই যুক্তি ওই মার্কিন উবার চালক মানেননি। বরং ধীরে ধীরে হিন্দুদের বিরুদ্ধে সুর চড়াতে থাকেন তিনি। এই পর্যায়ে ওই ভারতীয় এই বিষয়ে সব কথোপকথন বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করেন উবার চালকটিকে। কিন্তু তা সত্ত্বেও তিনি বলেই যেতে থাকেন। এভাবে তর্কাতর্কি হতে হতে একপর্যায়ে ওই উবার চালক প্রচন্ড রেগে গিয়ে গাড়ি থামিয়ে দেন। ওই ভারতীয় হিন্দু এবং তাঁর বোনকে গাড়ি থেকে নেমে যেতে বলেন।

এরপর ওই ভারতীয় ব্যক্তি উপায় না দেখে উবার চালককে পুলিশের ভয় দেখান। তাতে তিনি শান্ত হন। ওই প্রবাসী ভারতীয় জানিয়েছেন ওই ঘটনার পর থেকে তিনি খুব ভয়ে ভয়ে রয়েছেন। যা ঘটেছে তার থেকে আরও খারাপ ঘটনা ঘটতে পারত বলে আশঙ্কা করছেন তিনি। তাঁর মতে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে দিল্লি হিংসার একতরফা এবং মিথ্যা প্রতিবেদনের ফলেই হিন্দুদের নিয়ে গোটা বিশ্বে ফোবিয়া বা ভীতি তৈরি হয়েছে।

তুলসী গ্যাবার্ড-ই মার্কিন কংগ্রেসে প্রথম হিন্দু সদস্য। তিনি বিদেশ বিষয়ক ও সশস্ত্র বাহিনী সম্পর্কিত মার্কিন হাউস কমিটির সদস্যও বটে। উপরে বলা ভারতীয়ের অভিজ্ঞতা শেয়ার করে তিনি বলেছেন, 'হিন্দুবিদ্বেষ অত্যন্ত বাস্তব ঘটনা'। তাঁর দাবি, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রতিটি প্রচারেই তাঁকে এই অভিজ্ঞতার মুখে পড়তে হয়। উপরের ঘটনা মার্কিন মুলুকে হিন্দুরা প্রতিদিন কী অবস্থার মোকাবিলা করে তার উদাহরণ বলে দাবি করেছেন তিনি। তাঁর আক্ষেপ মার্কিন রাজনৈতিক নেতারা এবং সংবাদমাধ্যম এসব শুধু মেনে নিয়েছেন তাই নয়, আরও ইন্ধন জোগান বলেই অভিযোগ তুলসী গ্যাবার্ড-এর।