ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকান কংগ্রেসকেও বাধা দিয়েছেন কর্তব্য পালনে। সেই কারণেই এবার ইমপিচমেন্টের মুখোমুখি হতে চলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। আগামী সপ্তাহেই ইমপিচমেন্টের প্রস্তাব নিয়ে হাউস অফ রিপ্রেসেন্টেটিভে ভোটাভুটি হওয়ার কথা। 

শুক্রবার ১৪ ঘণ্টার ম্যারাথন বিতর্ক শেষে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইমপিচমেন্ট সংক্রান্ত দুটি অভিযোগে অমুমোদন দিয়েছে মার্কিন হাউস জুডিশিয়াল কিমিট। এর ফলে ট্রাম্পের ইমপিচমেন্ট নিয়ে ভোটাভুটির প্রক্রিয়া শুরুতে আর কোনও বাধা থাকল না। 

 দুদিন বিতর্কের পর ইমপিচমেন্ট সংক্রান্ত দুটি অভিযোগের উপর ভোটাভুটিতে সাময়িক স্থগিতাদেশ দিয়েছিল ডেমোক্র্যাটিক কমিটির চেয়ারম্যান জেরি ন্যাডলার। এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হন রিপাব্লিকানরা। শুক্রবার ভোটাভুটিতে ২৩-১৭ ভোটে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে দুটি অভিযোগই মান্যতা পায়। 

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখতে হাউস অফ রিপ্রেসেন্টেটিভ জুডিশিয়াল কমিটি গঠন করে। শুক্রবার সেই রিপোর্ট জমা পড়ে। কমিটির চেয়ারম্যান জেরি ন্যাডলার জানান, প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ইউক্রেনকে ৩৯৯ মিলিয়ন ডলারের সামরিক সাহায্য বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। আর দ্বিতীয় অভিযোগটি হল মার্কিন কংগ্রেসকে বাধা দেওয়ার। আমেরিকার ইতিহাসে যা অভূতপূর্ব বলে মনে করছেন ডেমোক্র্যাটরা। 

অন্যদিকে তাঁর বিরুদ্ধে চক্রান্ত চলছে বলেই দাবি করছেন ডোলান্ড ট্রাম্প। তবে ট্রাম্পের আগে আরও দুই মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ইমপিচমেন্টের প্রস্তাব এসেছিল।