হাউডি মোদী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প-ও। কিন্তু, পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের থাকার কোনও কথা ছিল না। কিন্তু, না থেকেও আছেন তিনি। শনিবারই হিউস্টনে এসে পৌঁছেছেন আমেরিকায় বসবাসকারী  সিন্ধি, বালুচ, পাস্তো সম্প্রদায়ের মানুষ। লক্ষ্য পাকিস্তানের হাত থেকে মুক্ত হতে চেয়ে হাউডি মোদী অনুষ্ঠানে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ও মার্কিন প্রেসিডেন্টের দৃষ্টি আকর্ষণ করা।

শনিবার সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদের তাঁরা জানিয়েছেন, পাক সরকার তাঁদের বিরুদ্ধে বারেবারে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে। তাই তারা পাকিস্তান তেকে স্বাধীন হওয়ার দাবি জানাচ্ছেন। নবি বক্সা বালুচ নামে বালুচ সম্প্রদায়ের এক প্রতিনিধি তুলেছেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের কথা। তাঁর আবেদন ১৯৭১ সালে বাংলাদেশকে স্বাধীন হতে যেভাবে সাহায্য করেছিল ভারত, সেইভাবেই পাকিস্তানের করায়ত্ব থেকে মুক্ত হতে তাঁদের সাহায্য করুক ভারত ও মার্কিন য়ুক্তরাষ্ট্র। তিনি আরও জানান, মোদী ও ট্রাম্পের সমর্থন আদায় করতেই তাঁরা হিউস্টনে এসেছেন।

শনিবার রাত পর্যন্ত শতাধিক সিন্ধি-মার্কিন হিউস্টনে এসে পৌঁছেছেন। রবিবার হাউডি মোদী অনুষ্ঠান হবে যে এনআরজি স্টেডিয়ামে, তার বাইরে স্বাধীনতাকামী পোস্টার-ব্যানার নিয়ে তাঁরা জড়ো হবেন। গলায় থাকবে স্লোগান। সিন্ধি-মার্কিনিদের এক প্রতিনিধি জাফর সহিতো, ভারত ও আমেরিকার শীর্ষনেতাদের এই সভাকে তাঁরা ঐতিহাসিক বলছেন। কারণ এটা বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন ও সর্ববৃহত দুই গণতান্ত্রিক দেশের নেতাদের যৌথ সভা। আর সেই সভা থেকেই সিন্ধিদের জন্য স্বাধীন দেশ গঠনের আওয়াজ তলতে চাইছেন তাঁরা।