নভেল করোনাভাইরাস থাবা বসালো আমেরিকায়। শনিবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন-এ এক ব্য়ক্তির মৃত্যু হল করোনাভাইরাস সংক্রমণে। এই প্রথম মার্কিন মুলুকের করোনার আক্রমণে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। তারপরই মার্কিন নাগরিকদের ইরানে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শুধু ইরান নয়, করোনার প্রাদুর্ভাবে বিপজ্জনক অবস্থায় থাকা দক্ষিণ কোরিয়া ও ইতালি-রও বেশ কয়েকটি জায়গায় ভ্রমণের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে মার্কিন প্রশাসন।

শনিবার হোটয়াইট হাউস থেকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জানান, করোনাভাইরাস সংক্রমণে দুর্ভাগ্যজনকভাবে ৫০ বছর বয়সী এক মহিলার মৃত্যু হয়েছে। তবে এতে বাকি নাগরিকদের আতঙ্কের কিছু নেই বলেই দাবি করেছেন তিনি। মার্কিন মুলুকে আরও অনেকেই এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মতে যদি কেউ স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করে থাকেন। তাহলে তাঁদের পক্ষে এই ভাইরাস সংক্রমণের কবলে পড়লেও তাঁরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন। আমেরিকায় অন্তত ১৫ জন আক্রান্ত হওয়ার পরও সেড়ে উঠেছেন বলে জানান তিনি।

ট্রাম্পের সাংবাদিক সম্মেলনে যোগ দেন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স-ও। তিনি জানান, গত ১৪ দিনের মধ্যে ইরানে ভ্রমণ করেছেন এমন বিদেশী নাগরিকদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করার নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাম্প। সেই সঙ্গে মার্কিন নাগরিকদের দক্ষিণ কোরিয়া এবং ইতালির যেসব জায়গা থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমনের খবর এসেছে, সেইসব জায়গায় না যাওয়ার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে। করোনাভাইরাস-এর মোকাবিলায় প্রশাসনিক প্রচেষ্টার নেতৃত্ব দিচ্ছেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট-ই। মার্কিন সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল-এর ডিরেক্টর রবার্ট রেডফিল্ড জানিয়েছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত ২২ টি করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে।

করোনাভাইরাস ক্রমেই বিশ্বজুড়ে মহা বিপর্যয় হিসেবে আত্মপ্রকাশ করছে। চিনের বাইরে ইরান, দক্ষিণ কোরিয়া ও ইতালি-তে এই ভাইরাস সংক্রমণে ভয়াবহ অবস্থা। দিন কয়েক আগে ভারত-ও এই তিন দেশে নাগরিকদের না যাওয়াউই ভালো বলে পরামর্শ দিয়েছিল। এদিন ট্রাম্প বলেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইরান-কে সবরকম সহায়তা করতে রাজি। তবে ইরানকে তাদের কাছ থেকে সাহায্য চাইতে হবে। জেনারেল সোলেমানির মৃত্যুর পর থেকে ইরান-মার্কিন সম্পর্কের উত্তেজনা ক্রমেই বেড়েছে। এই অবস্থায় করোনা নিয়েও কূটনীতির খেলায় মাতলেন ট্রাম্প। ব্রিটেনেও করোনা সংক্রমণে ২০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।