মার্কিন নির্বাচনের ভোট গণনা মাঝপথে পৌঁছে গিয়ছে। এখনও পর্যন্ত বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের থেকে চ্যালেঞ্জার জো বাইডেন অনেকটাই এগিয়ে আছেন। শেষ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট কে হবেন, তা এখনই বলা না গেলেও মঙ্গলবারের নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট-রা বড় জয় পেতে চলেছেন বলে মনে করছেন মার্কিন ভোট পর্যবেক্ষকরা। তাঁদের মতে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ১৫ টি প্রদেশের অধিকাংশ থেকেই সমর্থন পেয়ে কংগ্রেসের পুরো নিয়ন্ত্রণ থাকবে ডেমোক্র্যাটদের হাতেই। তবে অন্তত পাঁচটি প্রদেশের ক্ষেত্রে চূড়ান্ত ফলাফল পেতে বেশ কয়েকদিন, এমনকী কয়েক মাস-এ লেগে যেতে পারে।

রিপাবলিকান সেনেটর মিচ ম্যাককনেল-ই বলছেন, সেনেটে রিপাবলিকান-ডেমোক্র্যাট শক্তি ৫০-৫০ হতে পারে। তবে মার্কিন ভোট পর্যবেক্ষকদের পূর্বাভাস, ডেমোক্র্যাটরা সেনেটের ১০০টি আসনের মধ্যে ৫৫টি জিতে নিতে পরে। সেইক্ষেত্রে সেনেট এবং ৪৩৫ আসনের প্রতিনিধি পরিষদ - উভয় কক্ষেই গত এক দশকে প্রথমবারের জন্য তারা সংখ্যাগরিষ্ঠতা রাবে। হাউস অব রিপ্রেসেন্টেটিভস বা প্রতিনিধি পরিষদে ডেমোক্র্যাটদের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখাটা কতর্যত নিশ্চিত।

ওয়াশিংটনে তাদের রাষ্ট্রপতি মনোনীত প্রার্থী জো বাইডেন-ও বিজয়ী হলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নতুন রাজনৈতিক যুগের সূচনা হবে বলে আশা করছে ডেমোক্র্যাটরা। যদি বাইডেন রাষ্ট্রপতি এবং সিনেটর কমলা হ্যারিস উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন, তাহলে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের জন্য ডেমোক্র্যাটসদের নিজেদের আসনগুলি ধরে রাখার পাশাপাশি শুধুমাত্র তিনটি রিপাবলিকান আসন ছিনিয়ে নিতে হবে। রিপাবলিকানরা এখন সেনেটে ৫৩-৪7 আসনের সংখ্যাগরিষ্ঠতায় রয়েছে।

এদিন ভোট গণনার শুরুর দিকে বেশ পিছিয়ে ছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। একটা সময় বাইডেন ২০০-র গন্ডি পার করে ফেললেও ট্রাম্প ১০০-র কাছাকাছি আটকে ছিলেন। পরে ফ্লোরিডা-সহ বেশ কয়েকটি বড় প্রদেশে জয়ের ফলে দ্রুত সেই ঘাটতি পূরণ করে তিনি অনেকটাই এগিয়ে এসেছেন। লড়াইটা এখন একেবারে হাড্ডাহাড্ডি পর্য়ায়ে পৌঁছে গিয়েছে। এখনও পর্যন্ত বাইডেন জিতেছেন ২২৪টি নির্বাচনী ভোট, আর ডোনাল্ড ট্রাম্প জিতেছেন ২১৩টি।