হোয়াইট হাইসের দরজা থেকে আর ঠিক মাত্র ৬ ধাপ দূরে দাঁড়িয়ে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বিডেন। ভারতীয় সময় শুক্রবার রাতেই বিডেন ঘোষণা করেছিলেন আগামী মার্কিন রাষ্ট্রপতি হচ্ছেন তিনি। এবার তাঁর সেই দাবিতে শিলমহর দিল মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে ভোট গণনার চতুর্থ দিনে রণে ভঙ্গ দিলেন বলে এখনও দাবি করা যাবে না। কারণ রিপাব্লিকানরা এখনও হোয়াইট হাউসের দখল ছাড়তে নারাজ। তাঁরা আইনি পথ অবলম্বন করতে চলছেন।


শুক্রবার রাত থেকেই ব্যাটেল গ্রাউন্ড জর্জিয়া আর পেনসিলভানিয়া এই দুটি প্রদেশে এগিয়ে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাডিন। যার মধ্যে পেনলিভানিয়াতে ইলেক্ট্রোরাল ভোটের সংখ্যা ২০। আর এখনও পর্যন্ত বিডেনের মোট প্রাপ্ত ইলেক্ট্রোরাল ভোট ২৫৪। আর এই প্রদেশটি দখল করতে পারলে হোয়াইটহাউসের দরজা তাঁর জন্য খুলে যাবে আগামী চার বছরের জন্য। কারণ হোয়াইট হাউস দখলের ম্যাজিক ফিগার ২৭০।  এখনও পর্য্ন্ত এই প্রদেশে  ট্রাম্পের থেকে এগিয়ে রয়েছেন বিডেন। 

অন্যদিকে ১৯৯২ সালে ক্লিনটনের জর্জিয়া জয়ের পর এতদিন ডেমোক্র্যাটই জর্জিয়াতে জয় দেখতে পারননি। ২৮ বছর পর সেই জর্জিয়াও দখলে রাখতে চলেছে বিডেন। অন্যদিকে দেশের মোট প্রাপ্ত ভোটেও এগিয়ে রয়েছেন তিন। এখনও পর্যন্ত ১৪৭ মিলিয়ন ভোটের মধ্যে তাঁর দিকে পড়েছে ৪.১ মিলিয়ন ভোট। ভোট কমে যাওয়ায় রীতিমত হতাশ রিপাব্লিকান সমর্থকরা। ট্রাম্পের পর তাঁর সমর্থকরাও কাউন্টিং বন্ধ করার দাবি জানিয়েছেন। অন্যদিকে মার্কিন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের দৌড়ে এবার কিছুটা হলেও হাল ছাড়তে শুরু করেছেন ট্রাম্প। কারণ সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে তিনি বলেছেন প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য বিডেন যে দাবি করছেন তা খুব একটা ভুল নয়। তবে পুরো বিষয়টি আইনি পথে মোকাবিলা করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে বলেও দাবি করেছেন তিনি। তবে মার্কিন আইন বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন আইনের পথে গিয়ে নির্বাচনী ফল পরিবর্তন করা সম্ভব নয় ট্রাম্পের পক্ষে। 


পেনসিলভানিয়া, জর্জিয়ার পর নোভাদাতেও এগিয়ে রয়েছেন বিডেন। অ্যারিজোনাতেও এগিয়ে রয়েছেন তিনি। জোএর জন্য যদি হোয়াইট হাউসের দরজা খুলে যায় তাহলে রেকর্ড করবেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত কমলা হ্যারিসও। কারণ এই প্রথম কোনও মহিলা উপরাষ্ট্রপতি পাবে আমেরিকা। গতকালই কমলা হ্যারিসকে পাশে নিয়ে বিডেন জানিয়েছেন জয় এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। তবে মার্কিন সেনেটের দখল নিয়েছে ডেমোক্র্যাটরা। হাউসেও এগিয়ে রয়েছে তারা।