মঙ্গলে প্রাণ ও জলের সন্ধান পাওয়ার পথে আরও একধাপ এগিয়ে গেল মার্কিন স্পেশ রিসার্চ সেন্টার নাসা। গভীর রাতে লালগ্রহে অবতরণ করেছে নাসা রোভার প্যারসিভেব়্যান্স। শেষ সাত মিনিট রীতিমত আতঙ্কের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছিল সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীদের। কিন্তু তারপর রোভারের নিখুঁত অবতরণ রীতিমত প্রশংসা কুড়িয়েছে নাসার বিজ্ঞানীদের। আর সেই সঙ্গে শিরোনামে উঠে এসেছেন ভারতীয় বংশোদ্ভত মার্কিন গবেষক স্বাতী মোহন। নেটদুনিয়ার ভাইরাল তাঁর চিপ পরা ছবি। 

জন্মসূত্রে ভরতীয় স্বাতী মোহন। লোখাপড়া আর কর্মক্ষেত্র সবই আমেরিকায়। এক বছর বয়সেই বাবা মায়ের সঙ্গে মার্কিন মুলুকে পাড়ি দিয়েছিলেন। ভার্জিনিয়ার বাসিন্দা তিনি। গবেষক জানিয়েছেন মাত্র ৯ বছর বয়স থেকেই মহাকাশের প্রতি টান তৈরি হয়েছিল তাঁর। মেকানিক্যাল এয়রোস্পেশ ইঞ্জিনিয়ারিংএ স্নাতক। অ্যাস্ট্রোনটিক্সে এমএস ও পিএইচডি করেন তিনি। বর্তমানে নাসার মঙ্গল অভিযানে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে রয়েছেন তিনি। 

নাসার রোভার যখন মঙ্গলের মাটি স্পর্শ করে সেই সময় কন্ট্রোলরুমে ব্যস্ত ছিলেন নিজের দায়িত্বপালনে। শুধু আমেরিয়া নয় সেই সময় গোটা বিশ্বের নজর ছিল তাঁর দিকে। নাসার প্রকাশিত বেশ কয়েকটি ভিডিও ছিল স্বাতী মোহনের ছবি। যেখানে তিনি একটি ছোট্ট টিপ পরেছিলে। আর সেই ছবিই বর্তমানে ভাইরাল নেটদুনিয়ায়। স্বাতী মোহনের টিপ পরা ছবি মন কেড়ে নিয়েছে নেটিজেনদের। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে অনেকেই তাঁকে টিপ পরার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন। গভীর মনোসংযোগ দিয়ে কাজ করার পাশাপাশি স্বাতী মোহনের নীল রঙের ডাই করা চুল আর একটি ছোট্ট নিয়ে উচ্ছ্বসিত নেটিজেননা। 


লাল গ্রহে প্রাণের সন্ধানের পাশাপাশি জলেরও সন্ধান করবে নাগার রোভার। সেইসঙ্গে খোঁড়াখুঁড়ি করে মাটি ও পাথর সংগ্রহ করবে। ৪৩টি টেস্ট টিউবে তা সংগ্রহ করা হবে। ২০২৬ সালে নাসার পরবর্তী অভিযানে সেই টেস্ট টিউবগুলি পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনারও পরিকল্পনা রয়েছে নাসার।