অবৈধভাবে জমি দখলের অভিযোগ প্রত্যাহার করতে হবে। এই দাবি জানিয়ে বিশ্বভারতীকে চিঠি দিলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অর্মত্য সেন। যদিও, এই চিঠি নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী। বিশ্বভারতীকে পাঠানো চিঠিতে তাঁর যে সই রয়েছে। তা নিয়ে সন্দিহান তিনি।

আরও পড়ুন-জানুয়ারি শেষে রাজ্যে বাস ধর্মঘটের ডাক, ধর্মঘটের ইন্ধন জোগানের নেপথ্যে কে

অর্মত্য সেনের জন্মভিটেতে বিশ্বভারতীর জমি রয়েছে। এই বিতর্ক নিয়ে আগেই বিষ্ময়প্রকাশ করেছিলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অর্মত্য সেন। এবার আইনি পদক্ষেপ করলেন তিনি। অবৈধ জমি দখলের অভিযোগ নিয়ে সংবাদ মাধ্য়মে যে দাবি করা হয়েছে। তা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন অর্মত্য সেন। বিশ্বভারতীকে তাঁর আইনজীবী মারফত চিঠি পাঠিয়েছেন তিনি। যদিও, জনমি বিতর্কে নিজেদের অবস্থানে অনড় বিশ্বভারতী।

আরও পড়ুন-পুরুলিয়ায় মেজাজ হারালেন মুখ্যমন্ত্রী, 'বকেছি কিছু মনে করো না', বললেন শান্ত মমতা

এই বিষয়ে বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী বলেন, ''এই চিঠির নীচে অর্মত্য সেনের সই নেই। তাই আমাদের সন্দেহ আছে, ওই চিঠিটা আদৌ অর্মত্য সেনের কিনা। যদি ধরে নিই এটা ওনারই লেখা। তাতে যেসব শব্দ ব্যাবহার করেছেন, তা দেখে সত্যি খুব দুঃখ হল। জমি বিতর্ক নিয়ে আমরা কখনইও প্রকাশ্যে আসিনি''। জানিয়েছেন উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী।