আধিবাসী অধ্যুসিত বাঁকুড়ার জনসভায় নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে আদিবাসীদের উন্নয়নের পক্ষেই সওয়াল করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তিনি বলেন বিজেপি যদি বাংলার ক্ষমতায় আসে তাহলে আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষের উন্নয়নের একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন, এখন সময় এসেগেছে সোনার বাংলা গঠনের। আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষ যাতে কাজ পায়, শিক্ষার অধিকার পায়, সেদিকেই গুরুত্ব দেওয়া। সোমবার রানিবাঁধের জনসভা থেকে অমিত শাহ কাটমানি, তোলাবাজিসহ একাধিক ইস্যুতে তীব্র সমালোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর দল তৃণমূল কংগ্রেসের। পাল্টা বলেন এই রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় আসলে আয়ুষ্মান প্রকল্প,সহ সমস্ত কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্পগুলির সুবিধে রাজ্যের বাসিন্দারা পাবে।

অমিত শাহ নন্দীগ্রামের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনাকেও একটি নির্বাচনী ইস্যু তৈরি করেছেন। রানিবাঁধের জনসভা থেকে অমিত শাহ বলেন, নন্দীগ্রামের ঘটনাকে তৃণমূল কংগ্রেস কংগ্রেস যড়যন্ত্র  বলছেন। কিন্তু নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দিয়েছে সেটি ছিল নিছকই একটি দুর্ঘটনা। তারপরই তিনি অমিত শাহ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশ্যে বলেন,' দিদি আপনার পায়ের চোটের জন্য আজ আপনি হুইল চেয়ারে বসে রয়েছেন। আপনার কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু যেসব বিজেপি কর্মীরা রাজনৈতিক সংঘর্ষে মারা গেছেন, তাদের মায়ের দঃখের কথা কী কোনও দিনও ভেবে দেখেছেন? প্রয়াত বিজেপি কর্মীদের মায়েদের কষ্টের কথা কি আপনি জানেন? তাঁরও তো কারও ভাই ছিল, কারও মা ছিল। মৃত্যুর সময় তাঁরাও কষ্ট পেয়েছেন।'

এদিন রাণিবাঁধের জনসভা থেকে অমিত শাহ জানান তাঁর হেলিকপ্টার খারাপ হয়ে যাওয়ায় রাণিবাঁধের জনসভায় পৌঁছাতে দেরি হয়ে গিয়েছিল। বাঁকু়ড়াতেই তিনি সকাল থেকে হোটেলে বসে থেকে মাত্র পাঁচ মিনিটের জন্য ভার্চুয়াল সভায় অংশ নিয়েছিলেন তবে তিনি বলেন তাঁর হেলিকপ্টার খারাপ হয়ে  গিয়েছিল। নির্ধারিত সময় সভায় পৌঁছাতেই পারেননি। কিন্তু গোটা বিষয়টিকে তিনি ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেছেন না। এই বক্তব্য পেশ করে অমিত শাহ নাম না করে নিশানা করেন তৃণমূল নেত্রীকে। 


বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি যেসব ইস্যুগুলিকে হাতিয়ার করে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে লড়াই করছে তাদের মধ্যে অন্যতম হল রাজনৈতিক সংক্রান্ত। বিজেপির অভিযোগ গত লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই এই রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের হাতে বারবার আক্রান্ত হতে হচ্ছে তাদের দলীয় কর্মী সমর্থকদের। আর সেইক কারণেই এই রাজ্যে বিজেপির ৮৩ জন শহিদের বাড়িতে যাওয়ার পরিকল্পনা গ্রাহণ করেছে অমিত শাহ ও জেপি নাড্ডা। আর সেই কারণেই বাঁকুড়ার রাণিবাঁধের জনসভা থেকে অমিত শাহ, রাজনৈতিক হিংসায় মৃতদের কথা তুলে রীতিমত নিশানা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।