পদ্ম শিবিরে নাম লেখানোর পরই, জেলায় জেলায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বিজেপিতে যোগদান করার পরই, তাঁকে অনুসরণ করেছেন তৃণমূলের বেশ কয়েকজন মন্ত্রী ও বিধায়ক। দিল্লিতে গিয়ে গেরুয়া শিবিরে নাম লিখেয়েছেন অনেকে। তাঁদের দলবদলের পরই, তাঁদের ভাল কাজের প্রশংসা করেছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা। এবার রাজীব-শুভেন্দুর গুরুত্ব বুঝে তাঁদের দিল্লিতে ডেকে পাঠালেন অমিত শাহ। সেখানে বিজেপির কোর কমিটির বৈঠকে যোগ দেন তাঁরা।

আরও পড়ুন-'ভোটের আগে বাগান খোলার আশ্বাস দেয়, পরে পালিয়ে যায়', চা শিল্প নিয়ে বিজেপিকে তোপ মমতার

এই পরিস্থিতিতে রাজীব ও শুভেন্দুকে দিল্লিতে অমিত শাহের জুরুরি তলব ঘিরে রাজ্য বিজেপিতে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। কী কারণে তাঁদের ডেকে পাঠালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী? তাঁদের তলব করে কী গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা করবেন। দিল্লির বৈঠক ঘিরে ইতিমধ্যেই একাধিক প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে রাজ্য বিজেপিতে। সূত্রের খবর, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের রণকৌশল ঠিক করতেই তাঁদের দিল্লিতে ডেকে পাঠানো হয়েছে। দলের শীর্ষ নেতাদের নির্দেশ পেয়ে বারুইপুরের সভা থেকে সোজা দিল্লি চলে যান বিজেপির গুরুত্বপূর্ণ দুই নেতা।

আরও পড়ুন-চলতি মাসেই খুলতে পারে রাজ্যের স্কুল, কী জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যখন কলকাতা সফরে এসেছিলেন। সেই সময় মোদীর সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাৎ করেছিলেন শুভেন্দু।  মোদীর পা ছুঁয়ে প্রণাম করে আর্শিবাদ নিয়েছিলেন। অন্যদিকে, রাজীব বন্দ্যোপাধ্য়ায় দিল্লিতে গিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসভবনে গিয়ে গেরুয়া পতাকা হাতে তুলে নিয়েছেন। তারপরও, রাজীব ও শুভেন্দুর হাত ধরে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগদানের পর্ব অব্যাহত রয়েছে। মঙ্গলবার বারুইপুরে শুভেন্দু-রাজীবের সভাতেই বিজেপিতে যোগদান করেন ডায়মন্ড হারবারের তৃণমূল বিধায়ক দীপক হালদার। ওই দিনই রাজীব ও শুভেন্দুকে দিল্লিতে ডেকে পাঠালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।