পঞ্চায়েত অফিসের আধিকারিককে তৃণমূলের প্রধান ও তার দলবলের মারধোর থেকে শুরু করে জুতো দিয়ে পেটানোর অভিযোগে ব্যাপক উত্তেজনা। গ্রাম পঞ্চায়েতের সরকারি আধিকারিককে বকেয়া বিলের চেক তৈরি না করার অভিযোগে রীতিমতো ঘিরে ধরে মারধর ও চূড়ান্ত শারীরিক হেনস্থা করার অভিযোগ উঠল বুধবার খোদ তৃণমূলের মহিলা পঞ্চায়েত প্রধান, তার স্বামী ও তার দলবলের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন, 'ভোট দিতে যাও', চায়ে চুমুক দিয়ে বেহালার ঠাকুমার সঙ্গে গল্প জুড়লেন BJP পার্থী পায়েল 

 

 

বুধবার এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় মুর্শিদাবাদে খয়রামারি পঞ্চায়েত এলাকায়। গুরুতর অবস্থায় ওই পঞ্চায়েতের আর্য নির্বাহী সহায়ক সঞ্জীব পান্ডাকে পরবর্তীতে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।  অসুস্থ ওই নির্বাহী সহায়ক সঞ্জীব পান্ডের বাড়ি ইসলামপুরে। ঘটনায় নিগৃহীত পঞ্চায়েতের ওই কার্যনির্বাহী আধিকারিক জানিয়েছেন, বহু পুরোনো একটি কাজের জোর করে বিল করাতে বলেছিলেন প্রধান সেলিনা বিবি । সেটা না করায় আমাকে প্রধান মারধর করে । ওই সময় তাঁর স্বামী রফিকুল ইসলাম ও তার লোকজন উপস্থিত হয়ে প্রধানকে নিয়ে আমাকে জুতা  দিয়ে মেরেছেন।' ঘটনার পরই সঞ্জীব পান্ডে কে উদ্ধার করে প্রথমে ডা মহকুমা হাসপাতালে পরে অবস্থার অবনতি হলে ইসলামপুর গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে আবার মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

 

আরও পড়ুন, বেলদায় প্রায় জনশূন্য যোগীর সভা, মাঠ ভরাতে ১ ঘন্টা অপেক্ষা উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর 

 

 এদিকে সরকারি আধিকারিককে জুতা দিয়ে পেটানো থেকে শুরু করে শারীরিকভাবে হেনস্থার যাবতীয় অভিযোগ অবলীলায় অস্বীকার করেন অভিযুক্ত তৃণমূলের পঞ্চায়েত প্রধান সেলিনা বিবি। তিনি পাল্টা বলেন, সরকারি আধিকারিক সঞ্জীব পান্ডে সবসময় উন্নয়নে বাঁধা দেন মূলত সেই সব কথা নিয়ে কথা কাটাকাটি হলে দুজনেরই হাই প্রেসার থাকার ফলে শারীরিক অসুস্থ হলে দুজনেই হাসপাতালে ভর্তি হয়। তবে সঞ্জীব বাবু সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন অভিযোগ করছেন।' ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।