বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যে দল বদলের হিড়িক চলছে। যার ফলে সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই সেই দল বদলের পালে হাওয়া লেগেছে। রাজ্যে শাসক দলে মহাভাঙন আসতে চলেছে এই হুঙ্কার আগেই দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। বারাকপুরের সভা থেকে কালীঘাটে পদ্ম ফোটানের কথা বলেছিলেন তিনি। এবার সোমবার তমলুকের সভা থেকে কালঘীটে কবে পদ্ম ফুটবে তার সময় জানিয়ে দিলেন  শুভেন্দু অধিকারী। 

রবিরা ডায়মন্ড হারবারের সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারীকে ঘুষখোর বলে আক্রমণ করেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই সোমবার তমলুকের সভা  থেকে কি জবাব দেন শুভেন্দু সেই দিকেই নজর ছিল রাজনৈতিক মহল থেকে রাজ্যবাসীর। সভা থেকে অভিষেক পাল্টা 'চিটিংবাজ', 'ফেরেববাজ' বলে আক্রমণ করেন শুভেন্দু। একইসঙ্গে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্পত্তির পরিমাণ, বিদেশে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে শুরু করে নান ইস্যুতে তোপ দাগেন তিনি। একইসঙ্গে হুঙ্কার দিয়ে বলেন,'মাননীয় তোলাবাজ ভাইপো আমার বাড়িতে পদ্ম ফুটতে শুরু করেছে। ২৪ এপ্রিল রাম নবমীর আগে বাকি সব পদ্ম ফুটে যাবে। আর ১৬ ফেব্রুয়ারির পরে আমি আপনার বাড়িতে পদ্ম ফোটাব।' 

শুভেন্দু অধিকারীর এই মন্তব্যে স্বাভাবিকভাবেই জোর জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। এর আগে নিজের পরিবারে পদ্ম ফোটানো শুভেন্দু অধিকারীকে কটাক্ষ করে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তার কয়েক দিনের মধ্যেই শুভেন্দুর ভাই সৌমেন্দু অধিকারী যোগ দিয়েছিলেন পদ্ম শিবিরে। এবার কালীঘাটে পদ্ম ফোটানের সময় ঘোষণা করে দিয়ে পালটা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তাহলে কি এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ির কেউ বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন? উঠছে প্রশ্ন।