কখনও আদিবাসী পরিবার, কখনও মতুয়া পরিবার, কখনও আবার বাউল পরিবার। 'মাটির কাছাকাছি' থাকতে বঙ্গ সফরে এসে অমিত শা, জেপি নাড্ডার মত বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যাহ্নভোজ সারার নতুন ট্রেন্ড হয়ে উঠেছে এমন ঘটনা। আজ ফের বাংলা সফরে আসছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ায় একগুচ্ছ কর্মসূচি রয়েছে তার। তারমধ্যে রাধাগোবিন্দ মন্দিরে পুজো, কৃষক সুরক্ষা অভিযান কর্মসূচির সূচনা, কৃষক পরিবারে মধাহ্ন ভোজ ও রোড শো তার মধ্যে অন্যতম। আজ জেপি নাড্ডা মধ্যাহ্নভোজ সারবেন কাটোয়ার জগদানন্দপুর গ্রামের কৃষক মথুরা মণ্ডলের পরিবারে। 

পূর্ব বর্ধমান রাজ্যের শস্যগোলা হলেও, কৃষক মথুরা মণ্ডলের দিন আনা দিন খাওয়া পরিবার। জেপি নাড্ডা তাদের বাড়িতে মধ্যাহ্ন ভোজ সারবেন জানতে পেরে খুশি কৃষক পরিবার। ‘অতিথি’ বরণের জন্য নতুন করে রঙের প্রলেপ পড়েছে মথুরা মণ্ডলের বাড়িতে। মধ্যাহ্নভোজের মেনুও ঠিক করে ফেলেছেন। সকাল থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে রান্নার কাজ। একদম নিরামিষ খাবার। কারণ ভিভিআইপি অতিথি যে সম্পূর্ণ নিরামিষভোজী। তাই মেনুতেও একেবারে এলাহি আয়োজন নয়, বরঞ্চ থাকছে একেবারে ঘরোয়া আয়োজন। জেপি নাড্ডার  মেনুতে থাকছে,ভাত, রুটি, সোনামুগের ডাল, শাক, আলুভাজা, ফুলকপি-পনিরের তরকারি, চাটনি, পাঁপড়, দই ও নলেন গুড়ের রসগোল্লা। জেপি নাড্ডাকে তাদের অসুবিধার কথাও জানাবেন বলে জানিয়েছে  মথুরা মণ্ডলের পরিবার। পানীয় জল, রাস্তা সহ একাধিক সমস্যা রয়েছে গ্রামে। সেই সকল বিষয় বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতির কাছে তুলে ধরবেন কৃষক পরিবার।

সর্বভারতীয় সভাপতিকে বরণ করে নিতে বর্ধমান শহরে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি তুঙ্গে। বিজেপির ফ্ল্যাগ ফেস্টুনে মুড়ে ফেলা হয়েছে শহর। ব্যবস্থা করা হয়েছে ৩ টন গাঁদা ফুল ও ৮ হাজার গোলাপোর পাঁপড়ি। গেরুয়া বেলুন ওড়ানোর ব্যবস্থাও করা হয়েছে। আগেই পৌঁছে গিয়েছেন রাজ্যের নেতারা। যে রাস্তা দিয়ে কেন্দ্রীয় নেতা রোড শো করবেন, তার ব্যবস্থাপনা খতিয়ে দেখেন পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিজেপির সহকারী পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন। শেষবার ডায়মন্ড হারবারে গিয়ে হামলা হয়েছিল জেপি নাড্ডার কনভয়ে। তার নিরাপত্তা ব্যবস্থাও এবার জোরদার করা হচ্ছে।