একদিকে যখন বাংলায় মহিলা ভোটকে পাখির করে জিততে চাইছে তৃণমূল। জানাতে চাইছে-বোঝাতে চাইছে, গত ১০ বছরে মহিলাদের জন্য ঠিক কী কী করেছে রাজ্য সরকার। তাঁর ঋণ ফিরিয়ে দেবার বুঝি সময় এসেছে। আর ঠিক এমনই সময় শনিবার রাজ্যে মহিলাদের সবার আগে কোনটা দরকার, আর সেটাই তাঁরা পাইনি গত ১০ বছরে, এ নিয়ে ভোটের আগে ইয়োর্কার পড়ল তৃণমূল শিবিরে। বাংলার নারী নিরাপত্তা নিয়ে এবার অভিযোগ তুলল জাতীয় মহিলা কমিশন।


'নারীপাচার বন্ধ করতে নিষ্কৃয় প্রশাসন'

শনিবার দুদিনের রাজ্য সফরে এসেছেন জাতীয় মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সন রেখা শর্মা। বাংলায় পা রেখেই তিনি রাজ্য-প্রশাসনের নিষ্কৃয়তা নিয়ে সরব হলেন। তাঁর অভিযোগ, নারী নিরাপত্তা যথাযথ নয় এই রাজ্যে। নারীপাচারের মতো ঘটনা হামেশাই ঘটে চলেছে। অথচ সেসব বন্ধ করতে নিষ্কৃয় প্রশাসন। বাংলায় নারী নির্যাতনের যাবতীয় রিপোর্ট নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যপালের কাছে নালিশ জানাতে চান রেখা শর্মা। 


বাংলায় ২৫০ টিরও বেশি মামলার রিপোর্ট চেয়েছেন তিনি 

বাংলায় ২৫০ টিরও বেশি মামলার বিস্তারিত রিপোর্ট চেয়ে তিনি আগে থেকে চিঠি লিখে রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্রের সঙ্গে দেখা করার কথা জানিয়েছিলেন। সেই মত বৈঠক হবার কথা ছিল কলকাতার পুলিশ কমিশনার এবং মুখ্যসচিবের সঙ্গেও। কিন্তু রেখা শর্মার অভিযোগ, শেষ মুহূর্তে এসে তাঁরা হাজির থাকতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন ডিজিপি। উল্লেখ্য, সবচেয়ে বড় বিষয় হল, রাজ্য তথা দেশের একমাত্র মহিলা মুখ্য়মন্ত্রী এই মুহূর্তে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। এদিকে তাঁর রাজ্যেই নারী নিরাপত্তা নিয়ে আগেই প্রশ্ন তুলেছেন লকেট থেকে শুরু করে আরও একাধিক বিরোধী দলের নেত্রী। আর ভোটের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে যখন মহিলা ভোট দিয়ে বাজিমাত করতে চায় , সেই সময়ই জাতীয় মহিলা কমিশনের নিশানায় মমতার সরকার।