মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী কাঁথির সুরই ধরে রাখলেন নন্দকুমারের জনসভায়। দলীয় জনসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির তীব্র সমালোচনা অশান্তি ও সন্ত্রাসের দল বলে মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন বিজেপি মানে 'ভারতীয় জঘন্য পার্ট'। একই সঙ্গে তিনি নিশানা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকেও। 

মুখ্যমন্ত্রী  নন্দকুমারের জনসভায় নাম না করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চড়া সুরেই আক্রমণ করেন মোদীকে। তিনি বলেন 'আমি সাত বারের সাংসদ। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অনেক প্রধানমন্ত্রী দেখেছেন। কিন্তু এত নির্মম আর নিষ্ঠুর প্রধানমন্ত্রী কখনও দেখিনি।' একই সঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টিকে দানব রাক্ষস রাবণ দুর্যোধনের দল বলেও চিহ্নিত করেন করেন তিনি। অনেকটা একই সুরেই কাঁথির জনসভা থেকে বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছিলেন তাঁর একটি পা জখম। কিন্তু বিজেপিকে রাজ্যের বাইরে পাঠাতে তাঁর একটি পাই যথেষ্ট। নন্দীগ্রামে ভোট প্রচারে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পায়ে চোট পেয়েছিলেন। তারপর থেকেই হুইল চেয়ারে বসেই নির্বাচনী প্রচার চালাচ্ছিলেন।

অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাঁকুড়ার জনসভা থেকেই জানিয়েছেন নিজের পরাজয় দেখতে পাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেই কারণেই ইভিএম নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। অথচ ১০ বছর আগে ইভিএম-এর ভোটেই রাজ্যের ক্ষমতা দখল করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ২৭ মার্চ থেকে এই রাজ্যে ভোট গ্রহণ শুরু হবে। ৮টি দফায় ভোট গ্রহণ হবে। ২৯ এপ্রিল শেষ দফার ভোট গ্রহণ হবে। ফল প্রকাশ হবে আগামী ২ মে। এবার বাংলায় মূলত ত্রিমুখী ভোট লড়াই হবে। তৃণমূল, বিজেপি ও সংযুক্ত মোর্চার লড়াই। তবে প্রচারযুদ্ধে বাম কংগ্রেস জোটের তুলনায় অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে বিজেপি ও তৃণমূল।