মুর্শিদাবাদের নিমতিতায় মন্ত্রী জাকির হোসেনের বোমা বিস্ফোরণে আহত হওয়ার ঘটনায় ইতিমদধ্যেই তদন্ত ভার নিয়েছে এনআইএ। ঘটনায়  সুতির তৃণমূল বিধায়ক ইমানি বিশ্বাসকে জেরা করেছে তদন্তকারীরা। ভোটের আগগে তদন্তে এসেছে গতিও। এবার তদন্তের স্বার্থে বৃহস্পতিবার  ৬ সদস্যের এনআইয়ের একটি দল নিমতিতা এলাকায় পৌছয়। এলাকা খতিয়ে দেখার পাশাপাশি স্থানীয় নতুন চাদ্রা এলাকায় মোহন শেখ ও সানাউল শেখ নামের ব্যক্তির বাড়িতে দীর্ঘক্ষণ তল্লাশি চালায় তারা।

বৃহস্পতিবার হঠাৎই এলাকায় এনআইএ-র তদন্তকারীরা আসায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। মোহন শেখ ও সানাউল শেখের বাড়িতে তল্লাশির কারণ হিসেবে সূত্র মারফত জানা যায়, তদন্তকারীদের সন্দেহ এই  দু’জনেই নিমতিতা বিস্ফোরণে বারুদ সরবরাহ থেকে শুরু করে আইডি বিস্ফোরণ তৈরির ঘটনায় সরাসরি যুক্ত ছিলেন। মোহনের কাছে বারুদ কিনে শাহিদুলের পরিত্যক্ত বাড়িতে বোমা তৈরি হয়। মেলে একাধিক মিসিং লিঙ্ক। যদিও ইতিমধ্যে গ্রেফতার হয়েছে আইডি বিস্ফোরণকাণ্ডে অভিযুক্ত শাহিদুল শেখ ও আবু সামাদ। মূলত তাদেরকে দফায় দফায় মুখোমুখি জেরা করেই এই তথ্য গোয়েন্দাদের হাতে আসে। এদিন একাধিক নমুনাও সংগ্রহ করেন তদন্তকারীরা। 

প্রসঙ্গত,১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে তিস্তা তোর্সা এক্সপ্রেস ধরতে নিমতিতা স্টেশনে গিয়েছিলেন জাকির হোসেন। সেই সময় স্টেশনে বোমা বিস্ফোরণ হয়। যার জেরে গুরুতর জখম হন শ্রমমন্ত্রী-সহ কমপক্ষে ২৫ জন। রাতেই জাকির হোসেনকে নিয়ে আসা হয় কলকাতায়। সেই থেকে কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মন্ত্রী। জঙ্গিপুর বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থীও। হাসপাতাল থেকে বেডে শুয়েই ভিডিও বার্তার মাধ্যমে প্রচার সারছেন জাকির হোসেন। ঘটনায় দোষীদের শাস্তির দাবিও জানিয়েছেন তিনি।