সোমবার, নন্দীগ্রামের সভা থেকে একেবারে শিরোনাম তৈরি করে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন  আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে তিনি নন্দীগ্রাম আসন থেকে লড়বেন। কিন্তু, সেই সভাতেই এমন কিছু পোস্টার দেখা গেল, যা অস্বস্তিতে ফেলে দিচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে। কর্মসংস্থান থেকে পার্শ্ব-শিক্ষকদের স্থায়ীকরণের দাবিতে পোস্টার চোখে পড়ল জোড়াফুলের পতাকার ঢেউ-এর মাঝে। যা নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিজেপি।

এদিন রাজ্য বিজেপির সরকারি টুইটার হ্যান্ডেল থেকে এবং বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য একটি ভিডিও টুইট করেছেন। সেই ভিডিওয় দেখা যাচ্ছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সভা মঞ্চে দাঁড়িয়ে স্লোগান দিচ্ছেন 'আমার নাম তোমার নাম নন্দীগ্রাম নন্দীগ্রাম', আর তারমধ্যেই দুটি বেসুরো পোস্টার। একটিতে লেখা 'দিদি আমরা একটি করে কিডনি দিচ্ছি, বিক্রি করে চাকরি দিন'। আরেকটিতে লেখা 'দিদি আপনাকে আমরা বারবার চিঠি দিয়েছি, দিদিকে বলো তে ফোন করেছি। ফলাফল ০'।

এই ভিডিওটি পোস্ট করে রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকে বলা হয়, ওই পোস্টারধারীরা মমতা সরকারের ব্যর্থতার জন্য বেদনার্ত। তাই তরা সেই বেদনা প্রকাশ করার জন্য জড়ো হয়েছিলেন। দাবি করা হয়, বাংলা এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে ক্ষমতা থেকে সরাতে চাইছে। একই ভিডিও অমিত মালব্য বলেছেন, নন্দীগ্রামে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের প্রচেষ্টা বন্ধ করে দেওয়ার পর, কর্মসংস্থানের সুযোগ হারিছেন নন্দীগ্রামের মানুষ। সেই ক্ষুব্ধ মানুষরাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায় তাঁদের অভাব অভিযোগ তুলে ধরেছেন। দশ বছর পর মমতা সরকারে 'আউটপুট জিরো' বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

অন্যদিকে, আরও একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। যেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের নন্দিগ্রামের সভায় তৃণমূল সমর্থকদের মধ্য থেকেই আরও একটি বেসুরো পোস্টার তুলে ধরতে দেখা গিয়েছে। সেই পোস্টারে বলা হয়েছে, 'পার্টটাইম শিক্ষকদের স্বীকৃতি ও মর্যাদা দিন'। কারা এই বেসুরো পোস্টার তুলে ধরেছে তা নিয়ে তৈরি হয়েছে রহস্য।

এশিয়ানেট নিউজ বাংলার পক্ষ থেকে এই বিষয়ে যোগাযোগ করা হয়, পার্শ্বশিক্ষক ঐক্য মঞ্চের আহ্বায়ক ভগীরথ ঘোষ-কে। তিনি জানিয়েছেন, ওই পোস্টার তাঁদের কোনও কর্মী তুলে ধরেননি। বস্তুত, এদিন তাঁদের পক্ষ থেকে নন্দীগ্রামের সভার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে একটি চিঠি দিয়ে তাঁদের দাবিগুলি জানানো হয়েছে। নিরাপত্তাকর্মীদের মাধ্যমে সেই চিঠি গ্রহণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে পোস্টারধারীদের সঙ্গে তাঁদের মঞ্চের কোনও যোগ নেই বলেই জানিয়েছেন তিনি।