তৃনাঞ্জন চট্টোপাধ্যায়-পশ্চিম বর্ধমানঃ- পুলিশ কে তৃণমূলের পতাকা আর চকলেট দিল বনধ সমর্থনকারীরা। পশ্চিম বর্ধমান জেলার দুর্গাপুরের ঘটনা। এ দিন দুর্গাপুর এলাকায় রাস্তা অবরোধ করে বনধ সমর্থনকারীরা। 

আরও পড়ুন, বনধের জেরে বিপর্যস্ত শিয়ালদহের সব শাখায় ট্রেন চলাচল, চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা 

 

 

আরও পড়ুন, আজ বামদের ডাকা ১২ ঘন্টার বাংলা বনধে প্রভাব সর্বত্র, বন্ধ পরিষেবা, দেখুন ছবি 

 

রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখায়। বনধ তুলতে  এলে পুলিশকে উপহার সরূপ তৃণমূলের ঝান্ডা দেওয়া হয়। পুলিশ নিতে না চাইলে এক প্রকার জোর করেই দেওয়া হয়। বন্ধ সমর্থনকারীদের কথায় পুলিশ তৃণমূলের দলদাস। তাই বনধ সমর্থকদের এই গান্ধীগিরি। অপরদিকে, শুক্রবার সাতসকালেই  চূচূড়া রোডে অবরোধ করেন দলীয় পতাকা হাতে নিয়ে বাম কর্মীরা। তবে বিন্দুমাত্র  বচসায় না গিয়ে বামেরা সরাসরি পুলিশের হাতে ক্যাডবেরি চকোলেট তুলে দেয়। বাম কর্মীরা মুখে বলেন, 'আপনারা লাঠিপেটা করছেন, আমরা আপনাদের চকোলেট খাওয়াচ্ছি।' যদিও পুলিশ সেই চকোলেট নিতে অস্বীকার করেছে। তবে শুধু বনধ সফলে মিষ্টিমুখই নয়,  কোথাও আবার গোলাপ দেওয়া হয়েছে। 

 

 

উল্লেখ্য, বামেদের নবান্ন অভিযানে পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদে শুক্রবার ১২ ঘন্টার বনধ ঘোষণা করেছে বাম যুব ছাত্র সংগঠন। উল্লেখ্য,  কর্মসংস্থানের দাবিতে  বৃহস্পতিবার দুপুরে ১০টি বামপন্থী দল একসঙ্গে অভিযান করে। তাতেই বাধা দেয় পুলিশ। এই নিয়েই ধস্তাধস্তি শুরু হয়ে সেখানে। পরে তা ভয়ঙ্কর আকার নেয়।কলেজস্ট্রিট থেকে শুরু হয় মিছিলটির যাত্রা। মিছিলটি এসএন ব্যানার্জী রোড দিয়ে যাওয়ার সময় ধর্মতলা ক্রসিংয়ে আটকে বেরিকেড দিয়ে বাধা দেয় পুলিশ। আন্দোলনকারীরা ব্যারিকেড অতিক্রম করার চেষ্টা করলেই পুলিশ বাধা দেয়। এরপরে দু'পক্ষের মধ্যে বচসা শুরু হয়। পরিস্থিতি হাতের নাগালের বাইরে চলে যায়। পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে বাধে সংঘর্ষ। আহত হয় দুতরফেই, ডিসিপি সহ একাধিক পুলিশ কর্মী এবং বাম যুব ছাত্র সংগঠনের কর্মীরা।