রাজ্যের সমস্ত নাগরিকদের জন্য স্বাস্থ্যসাথী কার্ড সম্প্রসারণ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। স্বাস্থ্য বিমায় ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার ঘোষণা করা হয়েছে। অথচ সেই স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড ফেরাল তৃণমূল নেতার মালিকাধীন নার্সিংহোম। চিকিৎসা পরিষেবা না পেয়ে বাড়িতেই শয্যাশায়ী অবস্থায় রয়েছেন পেশায় দিনমজুর এক ব্যক্তি।

আরও পড়ুন-'নন্দীগ্রামেই দাঁড়াবেন মমতা, দু-জায়গায় দাঁড়ালে চলবে না, হেঁড়িয়ার সভায় তৃণমূল নেত্রীকে চ্যালেঞ্জ শুভেন্দুর

ঘটনাটি প্রকাশ্য়ে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে। রায়গঞ্জ পুরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের শক্তিনগরের বাসিন্দা রঞ্জিত মাহাত।পেশায় রঙ মিস্ত্রীর কাজ করেন তিনি। কাজের সময় উপর থেকে পড়ে গিয়ে তার পা ভেঙে টুকরো হয়ে যায়। অপারেশনের জন্য তাঁর কাছে থাকা স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড নিয়ে যায় পরিবার। কিন্তু সেই স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড ফিরিয়ে দেয় রায়গঞ্জ শহরের উপশম নার্সিংহোম।  তাৎপর্যপূর্ণভাবে ওই নার্সিংহোমের মালিক উত্তর দিনাজপুর জেলাপরিষদের কর্মাধ্যক্ষ তৃণমূল নেতা পূর্ণেন্দু দের। মুখ্যমন্ত্রীর সেই স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড ফিরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল খোদ তৃনমূল কংগ্রেস নেতার নার্সিংহোম থেকেই। 

আরও পড়ুন-শুভেন্দুর সভার আগেই উত্তপ্ত খেজুরি, বিজেপির উপর হামলার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

গুরুতর অসুস্থ দুস্থ দিনমজুর শ্রমিকের পাশে গিয়ে সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন বিজেপির রায়গঞ্জ মন্ডল কমিটি। দিন মজুরের পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দেওয়ার পাশাপাশি আপাতত চিকিৎসার জন্য ১১ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে বিজেপির তরফে। বিজেপির রায়গঞ্জ মন্ডল কমিটির সভাপতি অভিজিৎ যোশী অভিযোগ, স্বাস্থ্যসাথী কার্ড একটা ভোটের গিমিক। কোনও নার্সিংহোম এই কার্ড গ্রহণ করে না। দুয়ারে সরকার প্রকল্প সম্পূর্ণ ব্যার্থ বলে অভিযোগ বিজেপির। কেন স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড ওই নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ ফিরিয়ে দিয়েছে। তা খতিয়ে দেখে ব্যাবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন রায়গঞ্জ পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান অরিন্দম সরকার।