নির্বাচন কমিশনের কড়া মনোভাবের আঁচ পেলেন রাজ্যের প্রশাসনিক কর্তা। বুধবার রাজ্যে এসে প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে প্রথম দফার বৈঠক করেন  উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। উল্লেখ্য,  প্রশাসনিক মহলের অনুমান, এপ্রিলের মধ্য়েই রাজ্যে বিধানসভা ভোট পর্ব শেষ করতে চাইছে কমিশন।
 

আরও পড়ুন, ফের হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন সৌরভ, বসানো হতে পারে আরও ২ স্ট্রেন


প্রশাসনিক সূত্রের খবর, অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ নির্বাচন নিশ্চিত করতে সর্বস্তরের অফিসারদের রীতিমত সতর্ক করে দিয়েছেন কমিশন কর্তা সুদীপ জৈন। নুন্যতম গাফিলতিতেও ছাড় মিলবে না। আধিকারিক মহল জানিয়েছে,আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ বা ভোট পরিচালনায় যুক্ত কোনও অফিসারের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ থাকলে কমিশন আগে কারণ জানতে চাইত।  সঠিক উত্তর না পেলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করত কমিশন। তবে এবার গাফিলতি হলে কমিশন সরাসরিই সংশ্লিষ্ট অফিসারকে শাস্তি দিতে পারে বলে এদিন স্পষ্ট করে সকলকে বুঝিয়ে দিয়েছেন কমিশন কর্তা। 

আরও পড়ুন, 'অপসরণ নয়-ওনার তো বয়েস হয়েছে', ফিরহাদের মন্তব্যের পর রহস্যঘন 'শিশির' . 
 
উল্লেখ্য, বুধবার বিভিন্ন জেলার জেলা শাসক এবং এসপিদের সঙ্গে বৈঠক করে উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। দুটি পর্বে হয়েছে এই বৈঠক। একটি দক্ষিণবঙ্গে এবং অপরটি উত্তর বঙ্গে।  ওই বৈঠকে মূলত রাজ্য়ের আইন শৃঙ্খলার অবস্থানকেই গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে বৈঠকে কলকাতা পুলিশের এলাকায় রাজনৈতিক অশান্তি নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন তিনি। কেন কলকাতা পুলিশের এলাকায় রাজনৈতিক অশান্তি কমানো যাচ্ছে না এবং গ্রেফতারের সংখ্যা এত কম কেন বলেও প্রশ্ন তুলেছেন  উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন।

আরও পড়ুন, Election Live Update-বামেদের সঙ্গে আসন রফা চূড়ান্ত করতে পদক্ষেপ, বাংলায় আসছেন এআইসিসি-র ৩ নেতা 

 

 অপরদিকে, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি এবং ব্য়বস্থাপনা নিয়ে একাধিক প্রশ্ন তুলেছেন  উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। দু-এক সপ্তাহের মধ্য়েই রাজ্যে চলে আসতে পারে কমিশনের ফুল বেঞ্চ। প্রশাসনিক মহলের বক্তব্য, সাধারণ ক্ষেত্রে ফুল বেঞ্চ রাজ্যে ঘুরে যাওয়ার পর ভোট ঘোষণা করতে বেশি সময় লাগে না। প্রশাসনিক মহলের অনুমান, এপ্রিলের মধ্য়েই রাজ্যে বিধানসভা ভোট পর্ব শেষ করতে চাইছে কমিশন।