রাজ্য রাজনীতিতে চলছে দল বদলের পালা। প্রায় প্রতিদিনই কেউ না কেউ দল পরিবর্তন করছেন। ঘাস ফুল ছেড়ে পদ্ম শিবির, আবার কখনও পদ্ম শিবির ছেড়ে ঘাসফুলে। এইভাবে লাগাতার চলছে আসা-যাওয়া পর্ব। তবে এখনও পর্যন্ত শীর্ষ স্থানীয় নেতৃত্বের দল বদলের হিসেবে করলে তাতে সব থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর লাভের গুড় খেয়েছে বিজেপি। তবে এবার পাল্টা প্রত্যাঘাত করতে চলেছে শাসক দলও। ৭ জন বিজেপি সাংসদ তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছে বলে দাবি করলেন, রাজ্যের খাদ্য মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

মঙ্গলবার স্বামী বিবেকানন্দের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এক শোভাযাত্রায় যোগ দিয়েছিলেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। সেখানে দলবদল ও বিজেপির শক্তিবৃদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে জবাবে তিনি বলেন, খুব শীঘ্রই বিডেপির ৭ জন সাংসদ পদ্ম শিবির ছেড়ে যোগ দিতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেসে। ইতিমধ্যেই তৃণমূলের সঙ্গে তারা যোগাযোগ করেছে বলেও দাবি করেছেন খাদ্যমন্ত্রী। এছাড়া তৃণমূল থেকে চলে যাওয়া বিধায়করাও ফের দলে ওয়াপসির জন্য যোগাযোগ করছে বলে জানিয়েছেন জ্যোতিরপ্রিয় মল্লিক। তবে কারও নাম এখনই খোলাসা করেননি তিনি। শুধু বলেছেন, বিধানসভা নির্বাচনের আগে তারে আসলে দল তাদের স্বাগত জানাবে।

জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের এহেন বক্তব্যের পরই জোর জল্পনা তৈরি রাজ্য রাজনীতিতে। প্রশ্ন উঠতে শুরু করে তাহলে কি এবার ভাঙনের পালা পদ্মশিবিরে। যদিও খাদ্যমন্ত্রীর এই দাবিকে একেবারেই নস্যাৎ করে দিয়েছেন বিজেপে নেতা সায়ন্তন বসু। তিনি জানিয়েছেন, 'জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের এই দাবি একেবারেই ভিত্তিহীন। এখনও যারা তৃণমূলে রয়েছেন তারাও খুব শীঘ্রই বিজেপিতে চলে আসবেন।' এছাড়া জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক কটাক্ষ করে সায়ন্তন বসু বলেছেন, আগামি দিনে তিনি (জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক) কোন দিকে থাকবেন তা তিনি নিজেই জানেন না। ফলে দল বদলকে কেবন্দ্র করে বিধানসভা নির্বাচনের আগে যে বালই জলঘোলা হতে চলেছে তা বলাই যায়।