মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাল্টা সভা নন্দীগ্রামে হবে সেই ঘোষণা আগেই করে দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু নন্দীগ্রামের মাটিতে দাঁড়িয়ে যে সেখান থেকেই এবার নির্বাচনে লড়ার কথা ঘোষণা করবেন তৃণমূল সুপ্রিমো তা হয়তো আন্দাজ করতে পারেননি তাবড় তাবড় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। এই ঘোষণার মধ্য দিয়েই বিধানসভা নির্বাচনের দামাম বাজিয়ে দিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। অবশ্য দমে যনি শুভেন্দু অধিকারীও। মমতার গড় দক্ষিণ কলকাতায় দাঁড়িয়ে মাননীয়াকে নন্দীগ্রামে ৫০ হাজার ভোটে হারানোর হুঙ্কার দিয়েছেন বিজেপি নেতা। 

এই আবহে আজ নন্দীগ্রামে খেজুরিতে সভা শুভেন্দুর অধিকারীর। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণার পর যে নন্দীগ্রামের রাজনৈতিক আবহাওয়া যে শীতের মরসুমেও অনেকচাই গরম হয়ে রয়েছেন তা ভালো করেই অধিকারী পরিবারের মেজ ছেলে। তৃণমূল সুপ্রিমোকে পাল্টা তিনি কি জবাব দেন সেদিকেই তাকিয়ে নন্দীগ্রাম থেকে গোটা বাংলা। তবে গতকাল টালিগঞ্জ থেকে রাসবিহারী পর্যন্ত শোভাযাত্রার সময় শুভেন্দু অধিকারী জানিয়ে দিয়েছেন, আজকের সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সব উত্তর গুনে গুনে বুঝিয়ে দেবেন তিনি। শোভাযাত্রা শেষে সভা থেকে বলেছেন,'মাননীয়াকে হাফ লাখ ভোটে না হারাতে পারলে রাজনীতি ছেড়ে দেব'।

এই পরিস্থিতিতে সকাল থেকেই খেজুরিতে শুভেন্দু অধিকারীর সভা উপলক্ষ্যে আলতে বিজেপি করমী-সমর্থকরা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভার থেকে বেশি জমায়েত করাই লক্ষ্য পদ্ম শিবিরের। সোমবারের সভা তৃণমূলের তরফে ঐতিহাসিক দাবি করলেও, শুভেন্দু অধিকারী বলেছিলেন মাত্র ৩০ হাজার লোকের সভা হয়েছে। আজকের সভা নন্দীগ্রামের বিগত সভাকেও ছাপিয়ে যাবে বলে দাবি করেছে পদ্ম শিবির। সূত্রের খবর,সভা থেকে কোনও বড়সড় ঘোষণা করতে পারেন শুভেন্দু।ফলে বিধানসভা নির্বাচনের আগে ফের সব চোখ নন্দীগ্রামে একদী সতীর্থ, বর্তমানে যুযুধান দুই প্রতিপক্ষ মমতা-শুভেন্দু দ্বৈরথে।