'কে তৃণমূল ছেড়ে গিয়েছে, যায় আসে না', শুভেন্দুর নাম না করে আক্রমণ করেন কাঁথির সভা থেকে সৌগত। শাহ-সফরের পর এটাই তৃণমূলের কাঁথিতে পাল্টা জবাবের সভা। আর সেখান থেকেই যেন সৌগত-র 'গলায় আঙুর ফল টক'র গন্ধ পাওয়া গেল।

আরও পড়ুন, 'রাজ্যে চৈত্র সেল চলছে', তৃণমূলের সভার দিনেই আক্রমণ দিলীপের

 

বিজেপিকে হুঙ্কার দিয়ে  সৌগত রায় বলেন,  'এরা এলআইসি বেঁচে দিয়েছে। বিএসএনল বেঁচে দিয়েছে। এরপর ট্রেনে লেখা থাকবে অম্বানি এক্সপ্রেস, আদানি এক্সপ্রেস। বিমানবন্দর, রেল বিক্রি করে দিচ্ছে। দেশটাকে বিক্রি করতে শুরু করেছে এঁরা । সরকারি সংস্থাগুলিকে বেঁচে দিতে চাইছে এরা । তাঁদের মধ্য়ে রয়েছে নীরব মোদী, মেহুল চোক্সী, বিজয় মাল্যরা।' তিনি আরও বলেন, এই অতিমারির সময়ে রামমন্দিরের সূচনা হয়েছে। এর বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। কোভিডের জন্য কোনও আন্দোলন হচ্ছে না। অতিমারি গেলেই এই সরকারের বিরুদ্ধে দেশবাসীকে একজোট হতে হবে।'

আরও পড়ুন, 'আমরা রেশনের চাল খাই-শুধু ওনার জন্যই মিনিকেট এনেছিলাম', শাহ যেতেই অন্য রূপ বাসুদেব বাউলের


২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের মুখে কার্যত অনেকটাই মুখ থুবছে পড়েছে কাঁথি তৃণমূল সভা। মূলত শুভেন্দুর মতো হেভিওয়েট কোনও বিষয়ও নেই।  নেই কোনও অ্যাক্টিভ অ্যাক্সন। এটা যে শাহ সফর এবং শুভেন্দুকে কুপোকাৎ করতে গিয়ে 'তোলাবাজ ভাইপো'র গন্ধ বারবার উঠে আসা ছাড়া কিছুই নয়। আঁতে যে বড় ঘা লেগেছে, ফিঁসফিঁস রাজনৈতিক মহলে।