শুক্রবার গভীর রাতে কলকাতায় পৌছেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা অমিত শাহ। তার ২ দিনের বাংলা সফরেরর সব থেকে বড় চমক হতে চলেছে মেদিনীপুরের সভা। সেই সভাতেই আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন দোর্দন্ডপ্রতাপ প্রাক্তন তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু তারসঙ্গে আরও কতজন তণমূল বিধায়ক-নেতা বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন তা নিয়ে চলছে জল্পনা। কারণ শুভেন্দু অধিকারী দল ছাড়ার পর যেভাবে রাজ্য জুড়ে তৃণমূল ছাড়ার হিড়িক শুরু হয়েছে তাতে অমিত শাহের সভামঞ্চে সংখ্যাটা কত হবে তা নিয়ে সন্দিহান খোদ শাসক দলও।

তবে অমিত শাহের সভার সকালে সবথেকে বড় তাৎপর্যপূর্ণ খবর হিসেবে যেটা জানা যাচ্ছে, তাতে শাসক দলে কম্পন ধরে যাওয়া স্বাভাবিক। সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে অমিত শাহের সভায় শুভেন্দু অধিকারী ছাড়াও মোট ১৯ জন তৃণমূল বিধায়ক যোগ দিতে চলেছেন বিজেপিতে। অর্থাৎ মোট ২০ জন । এছাড়াও সভায় একাধিক জেলার প্রাক্তন ও বর্তমান তৃণমূল জেলা সভাপতিরাও থাকতে পারেন বলে জানা যাচ্ছে। শাহ সভায় যারা যোগ দিতে চলেছেন তাদের মধ্যে উল্লেখজনক হল, কাঁথির বিধায়ক বনশ্রী মাইতি, বারাকপুরের বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত, মন্তেশ্বরের তৃণমূল বিধায়ক সৈকত পাঁজা,পূর্ব বর্ধমানের তৃণমূল সাংসদ সুনীল মণ্ডল,হলদিয়ার সিপিএম বিধায়ক তাপসী মণ্ডল সহ অন্যান্যরা। বাকিদের নাম এই মুহূর্তে প্রকাশ না করলেও, চমক থাকছে বলে জানা যাচ্ছে অমিত শাহের সভায়।

তবে ২০-তেই সংখ্যাটা সীমাবদ্ধ থাকবে না বলে জানিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামী কণিষ্ক পাণ্ডা। শুভেন্দুর অনুগামী হওয়ায় আগেই দল তাঁকে বহিষ্কার করেছে। তিনি দাবি করেছেন শুভেন্দুর সঙ্গে তৃণমূলের প্রায় ৭০ থেকে ৭২ জন বিধায়ক, ১০ থেকে ১২ জন সাংসদ বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন। তার ক্ষেত্র ইতিমধ্যেই প্রস্তুত হতে শুরু করেছে। এছাড়াও রাজ্য জুড়ে অসংখ্য তৃণমূল নেতা-কর্মীরাও একইসঙ্গে দল ছাড়বেন বলে দাবি করেছেন কণিষ্ক পাণ্ডা। ফলে শাসক দলে ভাঙন ও বিজেপির শক্তি বৃদ্ধিকে ঘিরে বিধানসভা নির্বাচনের আগে উথাল-পাথাল বঙ্গের রাজনীতি।