১ এপ্রিল হলদিয়া বিধানসভা এলাকায় ভোটগ্রহণ। তার আগে শক্তি বৃদ্ধি করল তৃণমূল কংগ্রেস। বুধবার হলদিয়ার ১১ নম্বর ওয়ার্ডে অনুষ্ঠিত হলো তৃণমূল-এর যোগদান মেলা। যুব তৃণমূল নেতা আজগর আলীর নেতৃত্বে প্রায় সাড়ে চারশো পরিবার বুধবার তৃণমূলে যোগ দিলেন। তাঁদের ৮০ শতাংশই বিজেপির নেতা-কর্মী ছিলেন বলে দাবি তৃণমূলের। আর বাকিরা কংগ্রেস সিপিএম এবং আইএসএফ-এর সমর্থক ছিলেন।

আজগর আলী জানিয়েছেন, হলদিয়ার বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে প্রায় সাড়ে তিন হাজার মানুষ এদিন তৃণমূলে যোগ দিলেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতেই তাঁরা ঘাসফুল শিবিরে যোগ দিলেন বলে দাবি যুব নেতার। তাঁদের মধ্যে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বহু মানুষ আছেন, যাঁরা মৌলবাদী শক্তির বিরুদ্ধে মমতার হাত শক্ত করতে চান।

ইনসাফ বলে স্থানীয় এক সংগঠন, যারা এর আগে বিজেপির সমর্থক ছিলেন,, তাঁরাও এদিন তৃণমূলের যোগদান মেলায় জোড়াফুলের পতাকা ধরেন। তাঁরা জানিয়েছেন, তাঁরা মূলত বামপন্থী পরিবারের মানুষ। ২০১১ সালে পরিবর্তনের  পর স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব তাদের নানাভাবে বঞ্চিত করেছিল। তবে তৃণমূল দল নয়, শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামীরাই সেই কাজ করতেন বলে জানিয়েছেন তাঁরা। সেই সংগঠনের সকলেই পরে পদ্মফুল শিবিরে আশ্রয় নিয়েছিলেন। এখন শুভেন্দুই ঘাসফুল শিবিরে পাড়ি দেওয়ায়, জোড়াফুল হাতে তুলে নিলেন তাঁরা।