শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে যখন জল্পনা তুঙ্গে, তখন কার্যত বোমা ফাটালেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। শনিবার সকালে গঙ্গা ভ্রমণের ফাঁকে তাঁর মন্তব্য, 'শুভেন্দু অধিকারী একা নন, সৌগত রায়-সহ অন্তত ৫ জন তৃণমূল সাংসদ যেকোনও সময়ে ইস্তফা দিয়ে বিজেপিতে যোগদানের জন্য প্রস্তুত। এটা শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা।'

আরও পড়ুন: 'জীবন থাকতে বিজেপিতে নয়', অর্জুন সিং-র 'স্বপ্নে' জল ঢাললেন সৌগত রায়

'মুখ্যমন্ত্রীও তাড়াননি, আমিও দল ছাড়িনি।' মুখে বলেছেন বটে, একবারের জন্যও কিন্তু তৃণমূলে নাম করেননি। রাজনৈতিক মহলে এখনও পর্যন্ত জল্পনা জিইয়ে রেখেছে শুভেন্দু অধিকারী। রাজ্যের বিভিন্ন দলের ব্য়ানার, এমনকী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি ছাড়াই একে পর এক অরাজনৈতিক সভা করে চলেছেন তিনি। শনিবার আবার খাস কলকাতায় পরিবহণমন্ত্রীর সমর্থনে পোস্টার দিয়েছেন 'দাদার অনুগামী'। গেরুয়াশিবিরের অন্দরের খবর, মুকুল রায়ের পর শুভেন্দু অধিকারী মতো জনপ্রিয় নেতা, সংগঠক যদি দলে যোগ দেন, তাহলে একুশের ভোটের আগে শক্তি অনেকটাই বাড়বে বলে মনে করছে বিজেপি নেতৃত্বও। বস্তুত, দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ও কেন্দ্রীয় নেতাদের অনেকে শুভেন্দু অধিকারী স্বাগতও জানিয়েছেন।  এবার সেই তালিকায় নাম উঠল তৃণমূলের প্রবীণ সাংসদ সৌগত রায়েরও। বলা ভালো, তালিকায় তাঁর নাম জুড়ে দিলেন প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক, অধুনা বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং।

আরও পড়ুন: 'তৃণমূলে যোগ নেই, তারাই শেষ কথা বলছে' - ধিকি ধিকি আগুনে 'ভাইপো' ঘি ফেললেন অমিত মালব্য

উল্লেখ্য, একসময়ে অর্জুন সিং নিজেস ভাটপাড়া অঞ্চলে তৃণমূল দাপুটে নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। টিকিট না পেয়ে লোকসভা ভোটের মুখে বিজেপি যোগ দেন তিনি। সাংসদ নির্বাচিত হন ব্যারাকপুরের। তিনি বলেন, 'শুভেন্দু অধিকারীর মতো জননেতা যদি তৃণমূল ছেড়ে দেয়, তাহলে সরকার পড়ে যাবে। তৃণমূলের আরও কোনও শক্তি অবশিষ্ট থাকবে না।'