সাতসকালে চায়ের দোকানে বচসা। গুলিবিদ্ধ হলেন এক যুবক। তাঁকে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত আরও এক যুবক। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তর ২৪ পরগণার বসিরহাটে। অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

আক্রান্তের নাম সঞ্জয় রায়। বাড়ি, বসিরহাটের হাড়োয়ার খাসবালান্দা গ্রামে। সোমবার সকালে গ্রামেরই একটি চায়ের দোকানে গিয়েছিলেন সঞ্জয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, চায়ের দোকানে শেখ নাদু ও মোশারফ নামে দুই যুবকের সঙ্গে কথা কাটাকাটি তাঁর।  বচসা চলাকালীন আচমকাই সঞ্জয়কে লক্ষ্য গুলি চালিয়ে দেয় শেখ নাদু।  গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন আক্রান্ত যুবক। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, সঞ্জয়কে যখন বাঁচাতে যান শেখ গিয়াসুদ্দিন নামে এক যুবক, তখন তাঁকেও বন্দুকের বাঁট দিয়ে বেধড়ক মারধর করে অভিযুক্তেরা। শুরু হয় ব্যাপক বোমাবাজিও।  সঞ্জয় ও গিয়াসউদ্দিনকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। জানা গিয়েছে, গিয়াসউদ্দিনের শারীরিক অবস্থা রীতিমতো আশঙ্কাজনক। তাঁকে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে কলকাতায়।  আতঙ্কিত স্থানীয় বাসিন্দারা। 

আরও পড়ুন: অশোকনগরে খুন বৃদ্ধ দম্পতি, বাড়িতে মিলল রক্তাক্ত দেহ
 
ঘটনায় শেখ নাদু ও মোশারফ-সহ সাতজনের বিরুদ্ধে হাড়োয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্ত পরিবারের লোকেরা। অভিযুক্তেরা পলাতক। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, শেখ নাদু কুখ্যাত দুষ্কৃতী। এলাকায় বেশ কয়েকটি গন্ডগোলের ঘটনায় অভিযুক্ত সে।  কিন্তু চায়ের দোকানে সঞ্জয় রায়কে লক্ষ্য করে কেন গুলি চালাল শেখ নাদু? তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।