ফের বিতর্কে ভাঙড়ের তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলাম। এবার অবশ্য রীতিমতো তথ্যপ্রমাণ দিয়ে আত্মপক্ষ সমর্থনে নেমেছেন বিতর্কিত তৃণমূল নেতা। তাঁর দাবি, ফটোশপের কারসাজি করেই তাঁকে নিয়ে কুৎসা ছড়ানোর চেষ্টা চলছে। 

গত দু' দিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে আরাবুলের একটি ছবি। সেখানে দেখা যাচ্ছে, স্বাধীনতা দিবসের দিন তৃণমূলের কোনও একটি কার্যালয়ের বাইরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করছেন আরাবুল। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, পতাকা উত্তোলনের সময়ে আরাবুলের ডান পায়ের নীচে একটি কাগজের জাতীয় পতাকা পড়ে রয়েছে। তেরঙ্গার উপর দাঁড়িয়ে আরাবুল পতাকা উত্তোলন করেছেন বলে অভিযোগ ওঠে সোশ্যাল মিডিয়ায়। দ্রুত সেই ছবি ভাইরাল হয়। 

আরও পড়ুন- পার্টি অফিসে উল্টো জাতীয় পতাকা, বিরোধীদের চক্রান্ত দেখছেন তৃণমূল নেতারা

আরও পড়ুন- জাতীয় পতাকার নকশাকার, জেনে নিন এই মহান ব্যক্তিত্ব সম্বন্ধে কিছু কথা

এর পরেই আসরে নামেন আরাবুল এবং তাঁর অনুগামীরা। পাল্টা একটি ছবি পোস্ট করা হয় আরাবুলের ফেসবুক পেজে। সেই ছবিতে অবশ্য দেখা যাচ্ছে আরাবুলের পায়ের নীচে কোনও জাতীয় পতাকা নেই। এই ছবিটিকেই আসল দাবি করে আরাবুল অনুগামীদের অভিযোগ, ফোটোশপের কারসাজি করে আরাবুলের পায়ের নীচে জাতীয় পতাকা রেখে তাঁর নাম কুৎসা ছড়ানোর চেষ্টা চলছে। 

আরাবুলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি দাবি করেন, স্বাধীনতা দিবসের দিন ভাঙড় এবং সংলগ্ন এলাকায় প্রায় তিরিশটি জায়গায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন তিনি। ওই নির্দিষ্ট ছবিটি কোথায় তোলা, তা নিয়ে নিশ্চিত নন আরাবুল। তবু ছবি দেখে তাঁর মনে হয়েছে, নিউ টাউনের আখড়া কালীবাড়ি এলাকায় পতাকা উত্তোলনের সময় ছবিটি তোলা হয়। তাতেই ফোটোশপ করে  কুৎসা ছড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ আরাবুলের। বিষয়টি নিয়ে তিনি পুলিশেও অভিযোগ জানাবেন বলে দাবি করেছেন তৃণমূল নেতা। 

কয়েকদিন আগেই পোলেরহাট ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের দখলকে ঘিরে ফের বিতর্কে জড়িয়েছেন আরাবুল ইসলাম। জমি রক্ষা কমিটির প্রার্থীর বদলে নিজের অনুগামীকেই পঞ্চায়েত প্রধান হিসেবে জোর করে জিতিয়ে আনার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে। পঞ্চায়েতের উপপ্রধান নির্বাচিত হয়েছেন আরাবুল পুত্র হাকিমুল ইসলাম।