মানুষকে ঠকানোর জন্যই নতুন করে হেল্পলাইন নম্বর চালু করে 'দিদিকে বলো' কর্মসূচি চালু করেছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ দিন পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুরে এভাবেই তৃণমূলের নতুন প্রচার অভিযানকে কটাক্ষ করলেন বিজেপি নেত্রী। মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে তিনি 'বাক্স, বিছানা' গোছানোরও পরামর্শ দেন। 

ঘাটালে লোকসভা নির্বাচনে পরাজিত হলেও কেশপুরের মাটি কামড়ে পড়ে আছেন প্রাক্তন আইপিএস অফিসার। মঙ্গলবার কেশপুরের শাঁকপুর গ্রামে জনসংযোগ কর্মসূচি ও সভা করেনবিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষ৷ গ্রামে গিয়ে সভা করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথাও বলেন বাড়ি বাড়ি ঘুরে৷ পরে গ্রামের এক বিজেপি কর্মী ইনসার আলির বাড়িতে মধ্যহ্ন ভোজন সারেন তিনি৷

আরও পড়ুন- ফোন করলেও কেউ ধরবে না, 'দিদিকে বলো' নিয়ে মমতাকে তোপ মুকুলের

এর পরেই দলীয় সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আক্রমণ করেন তিনি। ভারতী বলেন, 'বর্তমান সরকারের ভিখারির মতো অবস্থা, কিছুই দেওয়ার নেই। খালি ধমকানি, চমকানি দিচ্ছে। আর কীভাবে মানুষকে ঠকানো যায়, সেই কথা ভাবছে। কখনও প্রশান্ত কিশোর, কখনো দিদি বলো, এসব চলবে না। কারন মানুষ এখন আর বোকা নেই। তাঁরা সব বুঝতে পারছে। তাই দিদিমণি আপনি আপনার বাক্স, বিছানা গোছান। আপনার যাওয়ার সময় হয়ে গিয়েছে। কোথায় যেতে চান বলুন, পুরো কেশপুর মিলে এক টাকা করে চাঁদা তুলে আমরা আপনাকে প্লেনের টিকিট, ট্রেনের টিকিট কেটে দেবো।'

 পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি ফের বলেন, 'কোনও গঠনমূলক ভাবনা নেই। বেকার যুবকদের চাকরি দিলে বুঝতাম। দিদিকে বলো- আরেকটা নতুন ভাঁওতা। দিদিকে বলো ডট কম মানে কী? মুখ্যমন্ত্রী কি প্রশাসনিক কাজ ছেড়ে ফোন ধরবেন? সাধারণ মানুষ আশা নিয়ে ফোন করলে দিদিমণি তা শুনে কাটমানি ফেরত দেবেন তো?  গোটা বাংলার মানুষ লাঞ্ছিত। এখন আর কোনও ডট কম কাজ করবে না, শুধু বিজেপি ডট কম কাজ করবে।'