পূর্বাভাস ছিলই। অবশেষে এবারের মতো রাজ্য থেকে বিদায় নিল বর্ষা। হাওয়া অফিস অন্তত তেমনই বলছে।  আবহবিদরা বলছেন, রাজ্যের বেশিরভাগ জায়গায় বৃষ্টির আর কোনও সম্ভাবনা নেই।  তবে মৌসুমী বায়ু এখনও পর্যন্ত সক্রিয় নদিয়ার কৃষ্ণগঞ্জ ও বাঁকুড়ায়। তবে তাও বেশিদিন থাকবে না।  বরং সামগ্রিকভাবে আবহাওয়া বর্ষার প্রতিকূলই হয়ে উঠছে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। 

প্রকৃতির খামখেয়ালিপনায় এ বঙ্গে ঋতুচক্র উলটপালট হয়ে গিয়েছে।  না হলে কী আর শরৎকালে মৌসুমীর বায়ুর গতিবিধি নিয়ে ভাবতে হত আবহবিদদের! এখন বর্ষাকালে স্বাভাবিক নিয়মে আর বৃষ্টি হয় না। চাতক পাখির অপেক্ষা করতে হয় কখন নিম্নচাপ কিংবা ঘুর্ণাবর্ত তৈরি হবে! আবার কখনও কখনও  ঘুর্ণাবতের কারণে অসময়ে বৃষ্টিতে বিড়ম্বনায় পড়তে হয় রাজ্যবাসীকে। এবারের তো যেমন দুর্গাপুজোর সময়ে বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছিলেন আবহবিদরা। অষ্টমীর দিনে বৃষ্টিও হয়েছে কলকাতায়। নবমীতে দফা  দফায় বৃষ্টি চলেছে জেলাগুলিতে। এবারের মতো দুর্গাপুজো শেষ। কিন্তু বাঙালির উৎসব তো আর শেষ হয়নি। সামনেই লক্ষ্মীপুজো, তারপর কালীপুজো, ভাইফোঁটা..... বৃষ্টি আর ভোগাবে না তো? আশার বানী শোনাল আবহাওয়া দপ্তর। 

বস্তুত, গত বুধবারই আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস ছিল, আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে কলকাতা ও রাজ্য থেকে বিদায় নেবে বর্ষা। শনিবার জানানো হয়েছে, নদিয়া কৃষ্ণগঞ্জ ও বাঁকুড়া বাদে কোথাও মৌসুমী বায়ু সক্রিয় নেই।  দু'একদিনের মধ্যে বর্ষা পুরোপুরি বিদায় নেবে রাজ্য থেকে।