মিঠু সাহা, শিলিগুড়ি:  লকডাউন জারি করেও কি আদৌও কোনও লাভ হচ্ছে? জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা হাজার পেরিয়ে গেল। বাদ গেলেন না খোদ মন্ত্রীর দেহ ও এক পুলিশকর্তাও। আতঙ্কের পারদ চড়ছে শিলিগুড়িতে।

আরও পড়ুন: বিয়ের মাস দেড়ের পরই সব শেষ, চন্দননগরে এবার করোনায় মৃত্যু স্কুলশিক্ষিকার

মানুষের দুর্ভোগ কমাতে গিয়ে কি ঘটল বিপত্তি? আনলক পর্বে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছে আরও। যতদিন যাচ্ছে, লাফিয়ে লাফিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে রাজ্যের সর্বত্রই। পরিস্থিতি এমনই যে, কলকাতা-সহ বিভিন্ন জেলার একাধিক এলাকাকে কন্টেনমেন্ট জোন ঘোষণা করে ফের পুরোদস্তুর লকডাইন জারি করতে কার্যত বাধ্য হয়েছে প্রশাসন। সেই তালিকায় নাম উঠেছে শিলিগুড়ি শহরেরও। শহরের ৯টি ওয়ার্ড এখন কন্টেনমেন্ট জোন। সেখানে পুরোদস্তুর লকডাউন জারি করেছে জেলা প্রশাসন। কিন্তু ঘটনা হল,  করোনাকে বাগে আনা যাচ্ছে না!

আরও পড়ুন: ৬৯৪ নম্বর পেয়ে প্রথম পূর্ব বর্ধমানের অরিত্র, দেখে নিন মাধ্যমিকের সম্পূর্ণ মেধাতালিকা

শেষ পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, স্রেফ দার্জিলিং জেলায় নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ২৭ জন। আর শিলিগুড়ি পুর এলাকায় সংক্রমণ ধরা পড়েছে আরও ৩৩ জনের। করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবের দেহরক্ষী ও  শিলিগুড়ি পুলিশ কমিশনারেটের এক কর্তাও। জেলায় আক্রান্তের সংখ্য়া এক হাজার চোদ্দ।  এদিকে আবার মঙ্গলবার শিলিগুড়িতে মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে মারা গিয়েছেন এক করোনা রোগী। হাসপাতালের রেসপিরেটরি ইন্সেটিভ কেয়ার ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মৃতের বাড়ি চম্পাশরি এলাকায়।