সাইকেল চালাতেই অভ্যস্ত সে।  কিন্তু বান্ধবীর নতুন স্কুটি দেখে কী আর নিজেকে সামলে রাখা যায়! চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর। গুরুতর আহত তার বান্ধবীও। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার হাবড়ায়।

আরও পড়ুন: সমুদ্র থেকে ফেরার পথে দুর্ঘটনা, দিঘার কাছে উল্টে গেল মৎস্যজীবীদের ট্রলার

মৃতের নাম  ববি দে। বাড়ি, হাবড়ার পৃথিবা গ্রাম পঞ্চায়েতের যশুর এলাকায়। স্থানীয় বানীপুর বানীনিকেতন স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল ববি। সাইকেল চালিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যেত ওই কিশোরী। বাইক বা গাড়ি সম্পর্কে কোনও ধারণাই ছিল না তার। অন্তত তেমনই দাবি প্রতিবেশীদের। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়  ববি-কে নতুন বাইক দেখাতে এসেছিল তার বান্ধবী অঙ্কিতা। সেই স্কুটিটি নিয়ে বেরিয়েছিল দুই বান্ধবী। চালকের আসনে ছিল ববি, আর পিছনে বসেছিল অঙ্কিতা। দুর্ঘটনা ঘটে হাবড়ার বদর বেড়াচাঁপা রোডে।  

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, অপটু হাতে চালাতে গিয়ে স্কুটির আর নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেনি ববি। রাস্তার পাশে একটি পাঁচিলে সজোরে ধাক্কা মারে সে। ছিটকে রাস্তায় পড়ে দুই বান্ধবী। দুর্ঘটনার পর দু'জনকে উদ্ধার করে হাবড়া হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয় বাসিন্দারা।  ববিকে কলকাতার আরজিকর হাসপাতালে, আর অঙ্কিতাকে বারাসত হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন চিকিৎসকরা।  কিন্তু ববি-কে নিয়ে যখন আরজিকর হাসপাতালে পৌঁছন পরিবারের লোকেরা, ততক্ষণে সবশেষ।  ওই কিশোরীকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। গুরুতর আহত অবস্থায় বারাসত হাসপাতালে ভর্তি অঙ্কিতা। তার শারীরিক অবস্থাও গুরুতর বলে জানা দিয়েছে।  ঘটনার আকস্মিকতায় হতবাক হয়ে গিয়েছেন মৃতার পরিবারের লোকেরা। বান্ধবীর সঙ্গে স্কুটি চালাতে গিয়ে মেয়ের এমন মর্মান্তিক পরিণতি মেনে নিতে পারছেন না ববি-এর পরিবারের লোকেরা। শোকস্তম্ভ পাড়া-প্রতিবেশীরাও।