বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে কলেজ পড়ুয়া এক ছাত্রীর সঙ্গে দিনের পর দিন সহবাসের অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে। ঘটনার কথা জানাজানি হতেই ছাত্রীর পরিবারকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে অভিযুক্ত যুবকের পরিবারের বিরুদ্ধে। আতঙ্কে কার্যত গৃহবন্দি অবস্থায় রয়েছে ওই ছাত্রীর পরিবার। 

ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার বিষ্ণুপুরে। অভিযুক্ত যুবকের নাম সালাউদ্দিন শেখ। ঘটনার পর থেকেই পলাতক বছর বত্রিশের ওই যুবক। এই ঘটনায় পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলেছে অভিযোগকারিণীর পরিবার। 

ওই কলেজ ছাত্রীর দাবি, ২০১৭ সালের এপ্রিল মাস থেকে তাঁর সঙ্গে স্থানীয় কাস্তেকুমারী গ্রামের বাসিন্দা অভিযুক্ত সালাউদ্দিনের পরিচয়। এর পর থেকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার তাঁর সঙ্গে সহবাস করে সালাউদ্দিন। তাঁকে একটি মোবাইল ফোনও উপহার দেয়। সেই ফোনের মাধ্যমেই দু' জনের মধ্যে যোগাযোগ থাকত। এর পরে তাঁর পরিবার বিষয়টি জানতে পারলে বিয়ের জন্য সালাউদ্দিনকে চাপ দেয় ওই ছাত্রী। অভিযোগ, এর পর একাধিকবার রেজিস্ট্রি বিয়ে করার নাম করে বিভিন্ন জায়গায় ডেকেও কথা রাখেনি সালাউদ্দিন। উপহার দেওয়া মোবাইল ফোনটিও নিয়ে নেয় সে। 

অভিযোগ, বিয়ে নিয়ে চাপ দেওয়ার পর থেকেই ছাত্রীর পরিবারকে নানা রকম হুমকি দিতে শুরু করে সালাউদ্দিনের পরিচিতরা। এর পর কয়েকদিন আগে লুকিয়ে সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে বিষ্ণুপুর থানায় ধর্ষণের অভিযোগ করেন ওই ছাত্রী। এর পরেই হুমকির মাত্রা আরও বেড়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ।  ওই ছাত্রীর বাড়ির বাইরে পাহারাও বসানো হয়েছে। আতঙ্কে কার্যত গৃহবন্দি ওই পরিবার। এমন কী, মামলা তুলে না নিলে ওই ছাত্রীর বাবা এবং  ভাইকে মিথ্যে মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ। এই ঘটনায় পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ করেছেন ওই ছাত্রী। 

অভিযোগকারিণীর দাবি, হয় সালাউদ্দিন তাঁকে বিয়ে করুক। তা না হলে আইন অনুযায়ী তাঁর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিক পুলিশ। এই ঘটনায় অভিযুক্ত যুবক বা তার পরিবারের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।