করোনা পরিস্থিতিতে অসাধু ব্যবসায়ীদের রমরমা। সরষে তেলের বাজারে আগুন। মূল্য বৃদ্ধি ঘটেছে সরষে তেলের। আর সেই সুযোগেই রমরমিয়ে বিকোচ্ছে তুলনামূলক সস্তা ওই ভেজাল সরষের তেল। রবিবার ভেজাল তেল মিলের হদিস মিলল মালদার চাঁচল মহকুমার কান্ডারণে। রবিবার কান্ডারণ এলাকায় ভেজাল তেল মিলের পর্দা ফাঁস করলেন চাঁচল মহকুমা শাসক সঞ্জয় পাল। 

পুলিশের কাছে খবর ছিল এক অসাধু ব‍্যবসায়ী ডালডা দিয়ে তেল তৈরি করে  বাজারে সরষে তেল বলে চালাচ্ছেন। এই খবর পেয়ে মহকুমা প্রশাসন ও পুলিশবাহিনী পৌঁছয় ওই মিলে। চাঁচল মহকুমাশাসক সঞ্জয় পাল অভিযান চালিয়ে দেখতে পান, তেল, টিনের স্টিকার, ঢাকনা, রাসায়নিক জাতীয় দ্রব‍্য, রঙ সহ তেল তৈরীর একাধিক সরঞ্জাম মজুত রয়েছে। সেগুলি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

এভাবে প্রকাশ্যে ভেজাল তেল বিক্রি হওয়ায়, রীতিমত আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়। করোনা পরিস্থিতিতে কীভাবে মানুষ সুস্থ থাকবেন, সেই চিন্তা সকলের। তারই মাঝে বিক্রি হচ্ছে ভেজাল তেল। এতে কত মানুষের শারীরিক ক্ষতি হতে পারে, তা সহজেই অনুমেয়। 

পলাতক রয়েছে মিল মালিক। সূত্রের খবর, এর আগে বেশ কয়েকবার  ওই এলাকায় প্রশাসন হানা দিয়েছে। তবুও ফের কিভাবে ওই মিল চালু হল তা নিয়ে রহস্য দানা বেঁধেছে। কারখানায় উপস্থিত কয়েকজন কর্মীরা কাজ করছিলেন। তারাই জানালেন ভেজাল তেল তৈরি রহস্য। তাদের মধ‍্যে কয়েকজনের বাড়ি উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জে।

 চাঁচলের মহকুমা শাসক সঞ্জয় পাল জানান, যারা কারখানায় ছিলেন তাদেরকে পুলিশের হেফাজতে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহন করবে। চাঁচল মহকুমা প্রশাসনের এমন বিশেষ অভিযানকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন সকলেই।