হিঙ্গলগঞ্জের বাকরায় শুক্রবার এনআরসি আতঙ্কে মৃত্যু হয় বছর পঁয়াতাল্লিশের আলিয়া বেওয়ার। সেই ঘটনার ২৪ ঘণ্টাও পেরোল না। বসিরহাটে ফের এনআরসির বলি হলেন এক যুবক। এবারের 
ঘটনা বসিরহাট মহকুমার মাটিয়া থানার দক্ষিণ কৃপালপুর। শনিবার সকালে নিজের বাড়িতেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল বছর ছত্রিশের মন্টু মণ্ডলের। পরিবারের দাবি, গত কয়েকদিন ধরেই এনএরসিতে 
নাম তোলা নিয়ে চিন্তিত ছিলেন মন্টু।

১৯৭১ সালের আগেই এদেশে এসেছিল মন্টুর পরিবার। সেই বিষয়ে উপযুক্ত নথির খোঁজ করছিলেন তিনি। কয়েকদিন ধরে বিডিও অফিসেও ঘোরাঘুরি করেন। শুক্রবার বিকেলেও উপযুক্ত নথি জোগাড় করতে বসিরহাট ২ নম্বর বিডিও অফিসে যান। এলাকার জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গেও যোগাযোগ করছিলেন। কিন্তু সব নথি ১৯৭১ সালের পর হওয়ায় আতঙ্ক গ্রাস করেছিল তাকে। শনিবার সকালে স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার সনয়ই হৃদরোগে আক্রান্ত হন তিনি।

পরিবারের একমাত্র রোজগেরে সদস্য ছিলেন মন্টুই। তিনটি ছোট ছোট কন্যা সন্তানকে নিয়ে আতান্তরে পড়েছেন মন্টু মণ্ডলের স্ত্রী মিনারাকে।  এদিকে এনআরসি আতঙ্ক ক্রমেই ছড়িয়ে পড়ছে বসিরহাটের বিভিন্ন গ্রামে। বিডিও অফিসের সামেন চোখে পড়ছে লম্বা লাইন।