খড়্গপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে হেরে গেলেও সার্বিকভাবে মেদিনীপুর লোকসভাতে তিনি বিপুট ভোটে জয়ী হয়ে রয়েছেন ৷ তাই এনআরসি ও সিএএ নিয়ে আলাদা আলাদা সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের ডেকে বৈঠকে বোঝালেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি ৷ খড়্গপুর উদ্ধারে নিজের ঘুঁটি সাজানো শুরু করে দিলেন তিনি ৷ এনআরসি , সিএএ নিয়ে গন্ডগোলের মাঝেই খড়্গপুর শহরের মধ্যে ছিটিয়ে ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক শুরু করলেন তিনি ৷ 

শনিবার সকাল থেকেই খড়্গপুর শহরে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ৷ সাত সকালেই খড়্গপুর শহরে প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে রোজকার মতো কথা বলেছেন মানুষের সঙ্গে ৷ যতখানি সম্ভব জনসংযোগ তৈরি করেছেন ঘুরে ৷ পরে দিনভর বিভিন্ন সম্প্রদায়ের সঙ্গে বৈঠক করেছেন ৷  এদিন খড়্গপুর শহরে প্রথম বৈঠকটি করেন খরিদা এলাকার একটি হলে ৷ জৈন সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে এই বৈঠক হয় ৷ বৈঠকে গত নির্বাচনের কিছুটা পরিস্থিতি তুলে ধরে আলোচনার পরে এনআরসি ও সিএএ- কি, কাদের জন্য দরকার তা বোঝান তাদের ৷ এরপর ওই সম্প্রদায়ের মধ্যে নিজদলের প্রতিনিধি নির্বাচিত করেন ৷ সংসদ প্রতিনিধি নির্বাচিত করে সামনের দিনে কি কাজ করা দরকার তা বুঝিয়ে দেন ৷ 

পরবর্তী বৈঠক হয় খরিদার অন্য একটি স্থানে ৷যেখানে শিখ সম্প্রদায়ের লোকজনের সঙ্গে বৈঠক করা হয় ৷ তাঁদের মধ্যেও  এনআরসি ও সিএএ বিষয়ে বুঝিয়ে সংসদ প্রতিনিধি নির্বাচিত করে কাজ বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে ৷ সেই সঙ্গে নিজদলের অস্তিত্ব কতখানি রয়েছে তাদের মধ্যে তাও খতিয়ে দেখেন  রাজ্য সভাপতি ৷ এরপর নিজের বাংলোতে ফেরেন দুপুরে ৷ বাংলোতে বৈঠক হয় কার্যকর্তাদের নিয়ে ৷ খড়্গপুরে হারের পরে দলের স্থানীয় কর্মীদের কোথায় কীভাবে কাজ করতে হবে তা ইতিমধ্য়েই নির্ধারিত হয়েছে ৷ 
 
বিকেলে সেখান থেকে রওয়ানা দেন খড়্গপুর শহরের পাশে সালুয়া এলাকায় ৷ সেখানে স্থানীয় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের লোকজনের সঙ্গে বৈঠক করেন  দিলীপবাবু। শিখ,বা জৈন্যদের মতো তাদেরও বোঝান এনআরসি ও সিএএ  কি ৷ তাদের এই দুই বিষয়ের ইতিবাচক দিক বুঝিয়ে সেখানেও প্রতিনিধি নির্বাচিত করেন দিলীপ বাবু ৷ তাঁদের মধ্যে বিজেপি দলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার বার্তা দেন তিনি ৷ 

এদিন সংবাদ মাধ্যমের সামনে দিলীপ ঘোষ বলেন,মানুষকে যতোই মুখ্যমন্ত্রী ভুল বোঝানোর চেষ্টা করুক না কেন, ওনার দলের লোকেরাই বুঝে গিয়েছেন ভুল কোনটা ৷ তাই হাঁটতে বের হলেও সঙ্গে সেভাবে লোক দেখা যাচ্ছে না ৷ আমরা বোঝানোর আগেই মানুষও তা বুঝে নিয়েছে ৷ ওদের বিরোধিতা,অবস্থান বিক্ষোভ এখন হাস্যকর হয়ে দাঁড়াবে ৷