নোবেল জয়ের পরে মঙ্গলবারই কলকাতায় প্রথমবার পা রাখছেন অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু এ রাজ্যের বিজেপি নেতারা এখনও যেন তাঁর নোবেল প্রাপ্তির যোগ্যতা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন। বিজেপি-র নেতা রাহুল সিনহার পরে এবার রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও বলে দিলেন, 'আমেরিকার জামাই' হয়েই নোবেল পেয়েছেন অভিজিৎ। এটাই 'বাস্তব সত্য' বলেও দাবি করেছেন খড়্গপুরের সাংসদ। 

নোবেল জয়ের পরেই ভারতের অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। গরিবের হাতে টাকা পৌঁছে দেওয়ার পক্ষেও সওয়াল করেছিলেন তিনি। নোবেলজয়ীর মুখে নাম না করে কেন্দ্রের আর্থিক নীতির সমালোচনা বিজেপি-র অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। তার উপর লোকসভা নির্বাচনের আগে কংগ্রেসের আনা ন্যায় প্রকল্পের অন্যতম মাথাও ছিলেন অভিজিৎবাবু। এর পর থেকেই দেশের রেলমন্ত্রী থেকে শুরু করে একাধিক বিজেপি নেতা নিশানা করেছেন বাঙালি অর্থনীতিবিদকে। এমন কীস তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়েছে। 

অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী এস্থার ডাফলো-ও নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। অভিজিৎবাবুর দ্বিতীয় বিয়ে করা নিয়ে এর আগে কটাক্ষ করেছিলেন বিজেপি-র সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক রাহুল সিনহা। এবার রাহুলবাবুর সঙ্গে সহমত পোষণ করে নোবেলজয়ীকে একই ধরনের কটাক্ষে ভরালেন দিলীপ ঘোষও।  

আরও পড়ুন- বন্ধু ছিলেন মোদী সরকারের মন্ত্রী, বিজেপি বিতর্কের মধ্যেই জানালেন অভিজিৎ

আরও পড়ুন- নোবেলজয়ীর পাতে চাই ভাল ইলিশ, উদ্য়োগী হয়ে ফোন নুসরতের

সোমবার ঝাড়গ্রামে দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে এসে বিজেপি রাজ্য সভাপতি বলেন, 'উনি নোবেল পাওয়ার পর আমি নিজেই অভিনন্দন জানিয়েছি। বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন মত প্রকাশ করেছেন। সবারই বলার অধিকার আছে গণতন্ত্রে।'

অভিজিৎবাবুর  দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে যে কটাক্ষ করা হচ্ছে তা তিনি সমর্থন করে কি না জানতে চাওয়ায় বিজেপি রাজ্য় সভাপতি বলেন, 'আমেরিকার জামাই হতে হয়, কোনও সন্দেহ আছে কি? দু' জন অর্থনীতিবিদ নোবেল পেয়েছেন, দু' জনেই আমেরিকান বিয়ে করেছেন। এটাও কারণ হতে পারে। এটাই বাস্তব সত্য!'

বিজেপি নেতাদের এ হেন মন্তব্যে যে তিনি হতাশ, ইতিমধ্যেই নিজের প্রতিক্রিয়া তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে সমালোচনা সত্ত্বেও দেশের অর্থনীতি নিয়ে নিজের অবস্থান থেকে সরে আসছেন না নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ। বরং ভারতে এসেও দেশের আর্থিক নীতি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন তিনি।