নোবেলজয়ী ছেলে কলকাতার বাড়িতে ফেরার খবর পেতেই, ছেলের পছন্দের সমস্ত খাবার মেনু তৈরি করে রেখেছিলেন 'মা' নির্মলাদেবী। কারন ছেলের মাছ খুব পছন্দ করে। আর সেই পছন্দের তালিকায় প্রথমেই রয়েছে বাঙালির প্রিয় ইলিশ। তাই ছেলের পাতে যে ভাবেই হোক পছন্দের মাছ তুলে দিতেই হবে। আর তার সঙ্গে থাকবে বাকি খাবারও।

বসিরহাটের সাংসদ যখন শুনলেন নোবেলজয়ী অভিজিৎ ব্যানার্জী পছন্দের তালিকায় রয়েছে বাংলার প্রিয় মাছ ইলিশ, সঙ্গে সঙ্গে নুসরত যোগাযোগ করেন নির্মলাদেবীর সঙ্গে। সাংসদ জানান, বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রের তরফ থেকে ইলিশ মাছ, তিনি উপহার হিসেবে ব্যানার্জী পরিবারকে দিতে চান। কারন, সারা বিশ্বে দেশের তথা বাংলার মুখ উজ্জ্বল করেছেন তিনি। সাংসদের এই প্রচেষ্টায় খুব খুশি হয়েছেন অভিজিৎ ব্যানার্জীর মা নির্মলাদেবী। সেই সঙ্গে ধন্যবাদও জানিয়েছেন নুসরত-কে। 

নির্মলাদেবী জানান, 'আমি একটি ছেলের জন্য বানাবো বলে একেবারেই ভেবে রেখেছিলাম আর তা হল, ওর অতি প্রিয় বেগুন দিয়ে ইলিশ মাছের ঝোল। আর সেই সঙ্গে ছিল ইলিশের অন্যান্য পদও রাখব। তবে এই সময় ইলিশের বাজার খুব একটা ভাল না হওয়ায়, ছেলের পছন্দের দ্বিতীয় মাছটা ভেবে রেখেছিলাম আর সেটা হল তপসে।' সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে নির্মলাদেবীর ছেলের জন্য মনের মত ইলিশ পাচ্ছেন না এই খবর প্রকাশিত হওয়ার পরেই, একের পর এক ফোন আসতে থাকে ইলিশ মাছের আয়োজন করার জন্য। এরমধ্যে দুপুরের মধ্যে একজন ব্যক্তি বাড়ি পৌঁছে যান একটি বড়মাপের ইলিশ মাছ নিয়ে বাংলার নোবেলজয়ী ছেলের পাতে যাতে পছন্দের ইলিশটুকু ওঠে। তবে সেই ব্যক্তি-কে কিছুতেই চিনতে পারেননি নির্মলাদেবী। তবে কে সেই ব্যক্তি যিনি নোবেলজয়ীর পাতে পছন্দের প্রিয় মাছ তুলে দিলেন, সেই নিয়ে ধন্দে  ব্যানার্জী পরিবার।