'গুলি মন্তব্য'-এর জন্য নিজের দলের অন্দরেই সমালোচনার মুখে পড়েছেন তিনি। বিজেপি-এর রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে পাল্টা দিতে দিয়ে এবার বিতর্কে জড়ালেন অনুব্রত মণ্ডল।  তৃণমূল কংগ্রেসের বীরভূম জেলা সভাপতির বক্তব্য, 'কেন্দ্র সরকারের দিলীপ ঘোষকেই গুলি মারা উচিত।' অনব্রত-এর মন্তব্য নিয়েও সমালোচনা ঝড় ওঠেছে বিভিন্ন মহলে।

ঘটনা ঠিক কী? রবিরার নদিয়ার রানাঘাটে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি-র সমর্থনে একটি জনসভায় হাজির ছিলেন বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।  কিন্তু সিএএ বিরোধী আন্দোলনে রাজ্যজুড়ে চলা তাণ্ডবের সমালোচনা করতে গিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে বসেন তিনি। বলেন, 'এককোটি অনুপ্রবেশকারী রয়েছে। তারা আমার-আপনার টাকায় খাচ্ছে। অন্তত পাঁচশো কোটি টাকা সম্পত্তি নষ্ট নষ্ট হয়েছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে একটি লাঠিও চলেনি, গুলিও চলেনি।  দিদির পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেনি। অসমে, উত্তরপ্রদেশে, কর্ণাটকে আমাদের সরকার এই শয়তানদের কুকুরের মতো গুলি করে মেরেছে, কেস দিয়েছে। এখানে খাবেদাবে আর এখানকারই সম্পত্তি নষ্ট করবে, জমিদারি পেয়েছে নাকি! লাঠিও মারব, গুলিও মারব, জেলেও ঢুকিয়ে রাখব। আমাদের সরকার তাই করেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুরোদ নেই, কিছু করতে পারেননি।' দিলীপ ঘোষ-এর এই মন্তব্যে বিতর্ক তুঙ্গে রাজনৈতিক মহলে।  বস্তুত দলের রাজ্য সভাপতিকে 'দায়িত্বজ্ঞানহীন' বলেছেন খোদ বিজেপি সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।

আরও পড়ুন: বাবুলের মন্তব্য়ের পাল্টা দিলেন দিলীপ, পশ্চিমবঙ্গে সুযোগ পেলে একই কাজ করব

সোমবার বীরভূমের লাভপুরে তৃণমূলের একটি সভা ছিল। সভায় হাজির ছিলেন দলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। সভা শেষে যথারীতি দিলীপ ঘোষের গুলি মারার বিতর্ক নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েন তিনি। অনুব্রত মণ্ডল বলেন,  'যদি কেউ সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করে, তাহলে তা দিলীপ ঘোষ করেছেন। তাই কেন্দ্রীয় সরকারের দিলীপ ঘোষকে গুলি করে মারা উচিত।' খোদ দলের বীরভূম জেলা সভাপতির এহেন মন্তব্যে সমালোচনা ঝড় ওঠেছে, অস্বস্তিতে পড়েছে ঘাসফুল শিবির।