তীব্র ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল বাঁকুড়া, পুরুলিয়া ও ঝাড়গ্রাম এলাকা। রাত ৩টে নাগাদ কম্পন অনুভূত হয়। ভূকম্পনের উৎপত্তিস্থল ছিল পুরুলিয়ার কেন্দা অঞ্চল। ভুপৃষ্ঠ থেকে ১০ কিলোমিটার নীচে এই কম্পনের কেন্দ্রস্থল ছিল।

জানা গিয়েছে মধ্যরাতের ২.৫০ মিনিটে প্রথম বার রিখটার স্কেলে ভূকম্পনের তীব্রতা ছিল ৪.১। রাত ২.৫৬ মিনিটে দ্বিতীয় বার রিখটার স্কেল অনুযায়ী কম্পনের তীব্রতা বেড়ে হয় ৬.৭। এই তীব্র ভূকম্পনে কেঁপে উঠে বাঁকুড়া,পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম-সহ গোটা জঙ্গলমহল। ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের খবর এখনও জানা যায়নি। 

তবে বন্যপ্রাণীরা বিশেষ করে হাতি, পাখি ও হনুমানে চিৎকার ও দাপাদাপিতে এলাকায় আরও আতঙ্ক ছড়ায়। 

বিজ্ঞান অনুযায়ী, ঝড়, বৃষ্টি, বন্যা, জলোচ্ছাস ইত্যাদির পূর্বাভাস পাওয়া গেলেও, ভূমিকম্প এমনই এক দুর্যোগ যার আগাম কোনও বার্তা পাওয়া যায় না। কিন্তু এই ভূমিকম্পই সবচেয়ে বিধ্বংসী  রূপ নিতে পারে।