ধূপগুড়ির আতঙ্কের মাঝেই ফের জোড়া দুর্ঘটনা রাজ্যে। মুর্শিদাবাদ থেকে মালদা যাওয়ার পথে জাতীয় সড়কে অগ্নিকান্ডে ভষ্মীভূত বাস। অপরদিকে, যাত্রীবোঝাই বেসরকারি বাস আর টাটা সুমো গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত কমপক্ষে ১৫ জন যাত্রী উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ থানা এলাকায়।

 

 

মুর্শিদাবাদ থেকে মালদা যাওয়ার পথে  যাত্রী বোঝায় একটি সরকারি বাসে আগুন লেগে ভস্মীভূত হয়ে গেল। এই ঘটনায় বৃহস্পতিবার ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়।বহরমপুর থেকে মালদা যাওয়ার পথে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের লালবাগ মহাকুমার অন্তর্গত গোপগ্রাম। স্থানীয় বাসিন্দা ও  থানার পুলিশের তৎপরতায় আগুন আওতায় আসে অবশ্য ততক্ষণে বাসটি পুড়ে খাক হয়ে যায়। উত্তর বঙ্গ রাষ্ট্রীয় বরিবহন সংস্থার ওই বাস টি বহরমপুর থেকে ছেড়ে মালদার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। পলশন্ডা পৌঁছানোর আগেই গোপগ্রামে হঠাৎই বাসের ইঞ্জিন থেকে আগুন লক্ষ করেন যাত্রীরা। পরিস্থিতি অনুমান করে বাসের চালক বাসটি কে রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে দেন ও যাত্রীদের বাস থেকে নামিয়ে দেন । এদিকে বাসের আতঙ্কিত যাত্রী রা সঙ্গে থাকা ব্যাগ পত্র না নিয়েই বাস থেকে নেমে পড়েন । 

 

 

এই ব্যাপারে বাসের যাত্রী মোকারম হোসেন বলেন ,'আগে থেকে কিছু বোঝা যায় নি। হঠাৎ ইঞ্জিনে আগুন লেগে যায় ।তবে বাসের চালকের তাৎক্ষনিক বুদ্ধিমত্তার কারনে বড় সড় বিপদের হাত থেকে মানুষ রক্ষা পেয়েছে ।' এদিকে এই ঘটনায় নিরাপত্তার প্রশ্ন তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন যাত্রী মইনুল শেখ । কোনরকমে প্রাণে বেঁচে গিয়ে চোখে মুখে আতঙ্ক ছবি নিয়ে তিনি বলেন ,' বাস ছাড়ার আগে ইঞ্জিন চেক না করেই বাস রওনা করিয়ে দেওয়ায় এই ঘটনা ঘটেছে ।'


অপরদিকে,যাত্রীবোঝাই বেসরকারি বাস আর টাটা সুমো গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত কমপক্ষে ১৫ জন যাত্রী। বৃহস্পতিবার ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ থানার মহীপুর এলাকায় রায়গঞ্জ-বালুরঘাট ১০ নম্বর রাজ্য সড়কে।  স্থানীয় বাসিন্দারা আহতদের উদ্ধার করে হেমতাবাদ ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যায়। বেশ কয়েকজনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে হেমতাবাদ থানার পুলিশ।  

 

 

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে,  ঘন  কুয়াশা আর মেঘলা আবহাওয়ার কারনে দৃশ্যমানতা কম ছিল রাস্তায়। রায়গঞ্জ থেকে যাত্রী বোঝাই একটি বেসরকারি বাস বালুরঘাটের দিকে যাচ্ছিল, উল্টোদিক থেকে রায়গঞ্জের দিকে আসছিল একটি টাটা সুমো প্রাইভেট গাড়ি। হেমতাবাদের মহীপুর এলাকায় ১০ নম্বর রাজ্য সড়কে দুটি গাড়ির মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটলে বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার ধারে থাকা নয়নজলিতে পড়ে যায়।  সংঘর্ষে দুটি গাড়ির মোট ১৫ জন আহত হন। আহতদের স্থানীয় বাসিন্দারা উদ্ধার করে হেমতাবাদ ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করেন। ঘটনাস্থলে আসে হেমতাবাদ থানার পুলিশ।  পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।