বাড়িতে ঢুকে এক গৃহবধূর মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার ক্যানিংয়ে। গৃহবধূর ছোট দুই শিশুর সামনেই তাঁর উপরে নির্যাতন চালানো হয় বলে অভিযোগ।  অভিযুক্ত যুবককে প্রথমে গৃহবধূর  পরিবারের সদস্যরা ধরে ফেললেও পরে এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে সে। অভিযুক্ত যুবক সাব্বির পিয়াদার খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। 

সূত্রের খবর, গত ১৯ জুন ঘটনাটি ঘটে ক্যানিং থানার অন্তর্গত গোলাবাড়ি এলাকায়। অভিযুক্ত সাব্বির পিয়াদা ওই গৃহবধূরই প্রতিবেশী। ঘটনার পর থেকেই ওই যুবক নির্যাতিতা এবং তাঁর পরিবারের সদস্যদের অভিযুক্ত যুবক প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছিল বলেও অভিযোগ। শেষ পর্যন্ত রবিবার সন্ধ্যায় ঘটনার কথা জানিয়ে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন নির্যাতিতা  গৃহবধূ।

আরও পড়ুন- পড়াশোনায় ভাল বোন, হিংসায় লাগাতার গণধর্ষণ চার দাদার 

ওই গৃহবধূর অভিযোগ, ঘটনার দিন গভীর রাতে তাঁর ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে ঢোকে সাব্বির। সেই আওয়াজে তাঁর ঘুম ভেঙে যায়। তিনি বাধা দিয়ে চিৎকার করতে গেলে তাঁর মাথায় রিভলবার ঠেকিয়ে ওই যুবক তাঁকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ গৃহবধূর। সেই সময় ঘরে তাঁর দুই শিশু সন্তানও ছিল। নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামী কর্মসূত্রে বাইরে থাকেন। 

ওই গৃহবধূর ভাসুর-সহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা আওয়াজ পেয়ে ঘটনার দিন রাতেই অভিযুক্ত যুবককে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। কিন্তু পুলিশে অভিযোগ জানাতে দেরি হওয়ায় এর পরেই এলাকা ছেড়ে পালায় সাব্বির পিয়াদা নামে ওই যুবক। ফোনে অভিযুক্ত যুবক তাঁকে প্রাণনাশের হুমকিও দিচ্ছে বলে দাবি করেছেন নির্যাতিতা। তাঁর দাবি, দীর্ঘদিন ধরেই ওই যুবক তাঁকে উত্যক্ত করত। অভিযোগ পেয়ে ঘটনার তদন্তে নেমেছে ক্যানিং থানার পুলিশ।