ফণী দুর্যোগ কাটার পর থেকেই টানা দাবদাহে পুড়েছে গোটা রাজ্য। তাপপ্রবাহের কবলে পড়েছে রাজ্যের একাংশ. উত্তর থেকে দক্ষিণ, গোটা রাজ্যে প্রবল গরম আর আর্দ্রতায় হাঁসফাঁস করেছে। আর অপেক্ষা করেছে, কবে বৃষ্টি হবে আবার?

অবশেষে আশার আলো দেখিয়েছে আবহাওয়া দফতর। গত সপ্তাহের শেষ দিকেই হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস ছিল, সোমবার থেকেই কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস মিলিয়ে রবিবার থেকেই গরমের দাপট সামান্য হলেও কমেছে। এ দিন সকাল থেকেই কলকাতা এবং সংলগ্ন জেলাগুলির আকাশ আংশিক মেঘলা। শেষ পর্যন্ত হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস পুরোটা মিলে গিয়ে স্বস্তির ঝড়বৃষ্টি হয় কি না, সেটাই দেখার। আবহবিদরা অবশ্য জানিয়েছেন, আজ দুপুরের পরে কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গেই  ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। অন্যদিকে উত্তরবঙ্গের আলিপুরদুয়ার, কোচবিহারের দার্জিলিংয়ের মতো জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে।

আবহবিদরা অবশ্য জানিয়েছেন, ঝড়বৃষ্টি হলে রাতের দিকের তাপমাত্রা কমলেও দিনের তাপমাত্রায় খুব বেশি বদল হবে না। কিন্তু গত দিন দশেক যেভাবে গরমের দাপট সহ্য করেছেন রাজ্যবাসী, তাতে সামান্য স্বস্তিও এখন তাঁদের কাছে বড় পাওনা হয়ে দাঁড়াবে।
 
তবে এই স্বস্তিও সাময়িক হবে  বলেই মনে করছেন আবহবিদরা। কারণ বিহারের উপরে তৈরি হওয়া ঘূর্ণাবর্ত সরে গেলেই বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুরের মতো পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে গরমের দাপট বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন তাঁরা।