প্রথা অনুযায়ী মহাষ্টমীতে কুমারী পুজো অনুষ্ঠিত হলো কামারপুকুর শ্রী রামকৃষ্ণ মঠে। এই উপলক্ষে এদিন মঠ প্রাঙ্গনে অসংখ্য ভক্তের সমাগম ঘটে। এখানে বৈদিক মতে পুজো করা হয়। 

পাঁচ বছরের কম বয়সের ব্রাহ্মণ কন্যাকে এ দিন পুজো করা হয়। মঠের অধ্যক্ষ স্বামী লোকত্বরানন্দ মহারাজ জানান, এই মঠে যাঁরা রঘুবীরের পুজো করেন তাঁদের পরিবারের মধ্যে থেকেই একজন কন্যাকে পুজোর জন্য উপযুক্ত কুমারী নির্বাচন করা হয়েছে। এদিন কুমারী পুজার পর সন্ধি পূজো হয়। এ দিন প্রায় সাত হাজার ভক্তকে কামারপুকুর আশ্রমে ভোগ খাওয়ানোর ব্যবস্থা করা হয়েছিল। 

কামারপুকুর মঠের মহারাজ জানিয়েছেন, বৈদিক মতে কুমারী পুজোর জন্য ব্রাহ্মণ ব্রহ্মচারী পূজারীকে প্রয়োজন হয়। এবার গুজরাতের রাজকোটের রামকৃষ্ণ মিশন থেকে সেই পূজারীকে কামারপুকুরে নিয়ে আসা হয়েছে। 

কামারপুকুর আশ্রমে পাঁচ বছর বয়স পর্যন্ত ব্রাহ্মণ শিশুকন্যাদের পুজো করা হলেও বেলুড় মঠে ছ' বছরের শিশুকন্যাকেও পুজো করা হয়। অন্যান্য জায়গায় ১৬ বছর বয়স পর্যন্ত মেয়েদের কুমারী পুজোর জন্য নির্বাচিত করা হয় বলে জানিয়েছেন কামারপুকুর আশ্রমের মহারাজ। সোমবার মহানবমীতে কামারপুকুর আশ্রমে চালকুমড়ো বলি হয়। নবমীতে কামারপুকুর আশ্রমে পনেরো হাজার মানুষের ভোগ খাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।