কৌশিক সেন, রায়গঞ্জ:  অস্থায়ী ধর্ণামঞ্চ থেকে বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করা নিয়ে জলঘোল কম হয়নি। চোপড়ায় ছাত্রীমৃত্য়ুকে কেন্দ্র করে অশান্তি ও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এবার দলের জেলা সম্পাদককে জেলে পুরল পুলিশ। গ্রেফতার করা হয়েছে আরও একজনকে।

আরও পড়ুন: এলাকায় 'তোলাবাজি' ও 'লুটপাট', প্রাক্তন অঞ্চল সভাপতিকে বহিষ্কার করল

রবিবার ভোরে উত্তর দিনাজপুরে চোপড়ার বসলামপুরে গ্রামে উদ্ধার হয় এক কিশোরীর দেহ। এবছরই মাধ্যমিক পাস করেছিল সে। বেলা গড়াতেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় এলাকা। পরিবার ও স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, শনিবার রাতে ওই কিশোরীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। রাতভর তাঁর উপর নারকীয় অত্যাচার চলে। শেষপর্যন্ত নির্যাতিতাকে খুন করে দেহ ফেলে রেখে পালিয়ে যায় অভিযুক্তেরা। ঘটনার প্রতিবাদে টায়ার জ্বালিয়ে জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন কয়েকশো মানুষ। অবরোধ তুলতে গেলে পুলিশের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ বেঁধে যায় বিক্ষোভকারীদের। জ্বালিয়ে দেওয়া হয় একাধিক সরকারি বাস ও পুলিশের জিপও।

অশান্তির নেপথ্যে কি বিজেপি? শুক্রবার রাতে আলিপুরদুয়ারের ফালাকাটা থেকে দলের উত্তর দিনাজপুরের জেলা সম্পাদক সুবোধ সরকার-সহ দু'জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর পুলিশ জেলার সুপার শচিন মক্কর জানিয়েছেন, ছাত্রী মৃত্যুকে কেন্দ্র চোপড়ায় অশান্তি পাকিয়েছিলেন সুবোধ। শুধু তাই নয়, মৃতদেহ উদ্ধারের পর এলাকায় তিনিই খুনের গুজবও ছড়ান। ঘটনার পর থেকে গা-ঢাকা দিয়েছিলেন অভিযুক্ত। ধৃতদের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

আরও পড়ুন: লকডাউনে শহরে 'অঘোষিত বনধ', শুনশান রাস্তায় টহল দিল পুলিশ

কী বলছেন বিজেপি স্থানীয় নেতৃত্ব? পুলিশের বিরুদ্ধে দলের নেতা-কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ করেছেন গেরুয়াশিবিরের নেতা সুরজিৎ সেন। তিনি বিজেপির উত্তর দিনাজপুর জেলার সহ-সভাপতিও বটে। এর  আগে রায়গঞ্জে চোপড়ায় ছাত্রীমৃত্যু কাণ্ডের প্রতিবাদে বিজেপি অস্থায়ী ধর্ণামঞ্চ ভেঙে দেয় পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় দলের নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়কেও। পরে অবশ্য আদালত থেকে জামিন পান তিনি।