হায়দারাবাদকাণ্ডের ছায়া এ রাজ্যে। দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জে কিশোরীকে গণধর্ষণের পর গলার নলি কেটে খুন করল প্রেমিক ও তার বন্ধুরা।  বাইকের পেট্রল ঢেলে জ্বালিয়ে দেওয়া হল দেহ। কালভার্টের নিচ থেকে নির্যাতিতার অগ্নিদগ্ধ দেহ উদ্ধার করল পুলিশ। ঘটনার বীভৎসতায় শিউরে উঠেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি করেছেন তাঁরা। 

স্নিগ্ধা সরকার, ছাত্রী, বালুরঘাট মহিলা কলেজ
'কঠোরভাবে ঘটনার নিন্দা করি। শাস্তি যতই কঠোর হোক না, তা কম হবে। আমরা মৃত্যদণ্ড চাই।  দোষীদের এতটাই কঠোর শাস্তি দেওয়া হোক, যাতে অন্য় ছেলেরা এই ধরণের কাজ করতে ভয় পায়।' 

সোমা কুণ্ডু, শিক্ষিকা
'এমন শাস্তি হোক, যাতে এই ধরণের ঘটনা আমাদের সমাজে না হয়। অনেক ঘটনা ঘটছে, দোষীদের শাস্তিও হচ্ছে। কিন্তু অপরাধ আবার হচ্ছে। পদক্ষেপ করতে হবে প্রশাসনকে। আইনগতভাবে অপরাধীদের শাস্তি দিতে হবে।'

 

হরিমাধব মুখোপাধ্যায়, নাট্যব্যক্তিত্ব
'সংস্কৃতির শহর বালুরঘাটে এমন ঘটনায় শিউরে উঠেছি। নিন্দার ভাষা নেই।  দোষীদের যতদ্রুত সম্ভব কঠোর শাস্তি চাই।'

সমিত ঘোষ, শিক্ষক
'দোষীদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করুক প্রশাসন। ভবিষ্যতে যেন আর কেউ এমন জঘন্য কাজ করার সাহস না পায়। মোবাইল ও সোশ্যাল মিডিয়ার যথেচ্ছ ব্যবহার যুব সমাজের ক্ষতি করছে।'

উল্লেখ্য, কয়েক মাস আগে হায়দরাবাদে ধর্ষণের করে খুন করা হয় এক তরুণী পশু চিকিৎসককে। প্রমাণ লোপাটের জন্য আবার দেহটি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। ঘটনায় শোরগোল পড়ে যায় গোটা দেশে। চারজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। দোষীদের ফাঁসির দাবি যখন ক্রমশই জোরালো হচ্ছে, তখনই এনকাউন্টারে নিহত হয় হায়দরাবাদকাণ্ডের অভিযুক্তেরা। সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জে।