রাজ্য় ছাড়িয়ে দেশের মুখ হয়েছিলেন আগেই। এবার  বিশ্বের ২০ জন সেরার তালিকায় বাংলার মেয়ে মহুয়া মৈত্রের নাম। সম্প্রতি 'ওয়ার্ল্ডস টুয়েন্টি টপ ফিউচার পাওয়ারফুল পিপল' নামের ওই তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস। যেখানে তৃণমূলের কৃষ্ণনগরের সাংসদও রয়েছেন।

কাদের হাতে আগামী দশক সেই শীর্ষক ভাবনা থেকেই একটি তালিকা তৈরি করেছে বিশ্বের স্বনামধন্য পত্রিকা ফোর্বস। যেখানে দেশের রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসাবে উঠে এসেছে মহুয়ার নাম। প্রথমবার লোকসভার সাংসদ হয়ে ইতিমধ্য়েই সংসদে নজর কেড়েছেন মহুয়া। গণতন্ত্র নিয়ে মোদী সরকারকে ঠুঁকে তাঁর ভাষণ সংবাদের শিরোনামে নিয়ে আসে তাঁকে। যেখানে দেশের গণতান্ত্রিক পরিবেশের কথা বলতে গিয়ে বার বার মোদী সরকারকে কাঠগড়ায় তোলেন তিনি। 

সংসদে তাঁর প্রথম বক্তৃতার জন্য বিতর্ক কম হয়নি। একটি সর্বভারতীয় চ্যানেলের সম্পাদক বলেন, নিজের ভাষণ অন্য কারও থেকে টুকেছেন মহুয়া। যদিও সেই চ্যানেলের এডিটরের বিরুদ্ধে মানহানির কথা বলতেই ক্ষমা চান তিনি। কদিন আগেও নদিয়ার করিমপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে বিপুল ভোটে জয় পায় তৃণমূল। বলা হচ্ছে, সেখানেও মহুয়ার ক্যারিশ্মা কাাজে আসে।

তবে একা মহুয়া নন, ফোর্বসের আগামী দিনে ক্ষমতাশালীদের তালিকায় রয়েছে কানহাইয়া কুমার ও প্রশান্ত কিশোরের নাম। সিপিআইয়ের কেন্দ্রীয় পরিষদের সদস্য কানহাইয়া। জেএনইউ-তে ছাত্রনেতা থেকে দেশের নেতা হিসাবে নিজেকে তুলে ধরেছেন তিনি। ইতিমধ্য়ে বাম মতাদর্শে বিশ্বাসী এই নেতার বক্তব্য় সোশ্য়াল মিডিয়ার ঝড় তুলেছে। সহজ সরল বিহারি আদলে তাঁর বক্তব্য় সহজেই মানুষ গ্রহণ করে। লোকসভা ভোটে বেগুসরাই থেকে হারলেও সোশ্য়াল মিডিয়ায় তাঁর অনুগামীর সংখ্য়া কমেনি।

ফোর্বসের তালিকায় রয়েছে পলিটিক্যাল স্ট্র্য়াটেজিস্ট প্রশান্ত কিশোরের নাম। নিজে জেডিইউ দলের নেতা হলেও তাঁকে নিয়ে চিন্তার শেষ নেই রাজনৈতিক দলগুলির। সম্প্রতি লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে ২ থেকে ১৮টি আসন পেয়েছিল বিজেপি। তারপরই প্রশান্ত কিশোরের দ্বারস্থ হন মমতা। ইতিমধ্য়েই 'দিদিকে বলো'র মাধ্য়মে তৃণমূলের ভোল বদলে দিয়েছেন পিকে। যার ফলও হাতেনাতে পেয়েছে তৃণমূল। তিন বিধানসভার উপনির্বাচনে সবকিটতেই জয় পেয়েছে তারা। সেখানে বিজেপির ভাঁড়ার শূন্য।    

এদিকে দেশের ছাড়াও ওই তালিকায় রয়েছে কিছু বিদেশি নেতাদের নাম। যাদের মধ্যে আছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজপক্ষ, সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মহম্মদ বিন সালমান, নিউজিল্যান্ডের প্রাইম মিনিস্টার জাকিন্দা আরডেরন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনশন, ফিনল্যান্ডের প্রাইম মিনিস্টার সান্না মারিনের নাম রয়েছে। ফোর্বস ইন্ডিয়ার তালিকায় সম্ভাব্য প্রভাবশালীর তালিকায় নাম রয়েছে সদ্য হরিয়ানার উপমুখ্যমন্ত্রী হওয়া দুষ্মন্ত চৌতালার নামও।