রাহুল গাঁধীর কায়দাতেই এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে মুখোমুখি বিতর্কে বসার চ্যালেঞ্জ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরের সভা থেকে তিনি বলেন, "আপনার পছন্দের কোনও চ্যানেলে আসুন। আপনি আমায় কিছু প্রশ্ন করবেন, আমি আপনাকে কয়েকটা প্রশ্ন করবে. বলুন সাহস আছে?"

রাফাল বিতর্ক নিয়ে অনেকদিন ধরে প্রধানমন্ত্রীকে খোলা বিতর্কে মুখোমুখি হওয়ার চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গাঁধী। তিনিও দাবি করেছেন, খোলা বিতর্কসভায় নরেন্দ্র মোদী এলে প্রমাণ করে দেবেন যে রাফাল চুক্তিতে দুর্নীতি হয়েছে। এ বার প্রধানমন্ত্রীকে সেই একই চ্যালেঞ্জ জানালেন মমতা। একই সঙ্গে রাহুলের মতোই তাঁর অভিযোগ, টেলি প্রম্পটার দেখে লিখিত বক্তৃতা দেন প্রধানমন্ত্রী।

শুধু তাই নয়, বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষের গাড়ি থেকে টাকা উদ্ধার হওয়া নিয়েও এ দিন বিজেপি-কে আক্রমণ করেছেন মমতা। তাঁর অভিযোগ, কেন্দ্রীয় বাহিনীর পাহারায় রাজ্যে বাইরে থেকে বাক্স করে টাকা ঢোকানো হচ্ছে। প্রচার শেষ হলেই রাতে বিজেপি টাকা বিলি করছে বলে অভিযোগ মমতার। বিজেপি-র টাকা বিলি রুখতে দলীয় কর্মীদের রাত জাগার পরামর্শ দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী। মমতার প্রশ্ন, "এসব কি নোট বাতিলের টাকা?" তবে এই অভিযোগ করার সময় ভারতী ঘোষের নাম নেননি তিনি।   

বাংলায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর অতি সক্রিয়তা নিয়েও প্রস্ন তুলেছেন মমতা। তিনি প্রশ্ন কররেন, "গুজরাট, উতত্তর প্রদেশের মতো রাজ্যে কত কেন্দ্রীয় বাহিনী পাঠানো হয়েছে?" একই সঙ্গে তাঁর দাবি,  এত কিছুর পরেও তেইশে মে বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ পাবে তৃণমূল।. 

মমতা এ দিন ফের একবার প্রধানমন্ত্রীর যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন. তিনি বলেন, "এমন প্রধানমন্ত্রী আগে কখনও দেখিনি. কাউন্সিলর হওয়ার যোগ্যতা নেই, প্রধানমন্ত্রী হয়েছে. প্রধানমন্ত্রীকে কেউ সম্মান করে না. আমি রাজীব গাঁধী, নরসীমা রাও, অটলবিহরী বাজপেয়ী, মনমোহন সিংহদের আমলে কাজ করেছি. এমন মিথ্যেবাদী প্রধানমন্ত্রী আগে দেখিনি" 

এ দিনও প্রধানমন্ত্রীকে থাপ্পড় মারা নিয়ে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেছেন মমতা। ফের একবার বলেছেন, তিনি প্রধানমন্ত্রীকে থাপ্পড় মারার কথা বলেননি, বলেছেন গণতন্ত্রের থাপ্পড় মারার কথা। প্রধানমন্ত্রী বাংলা বোঝেন না বলেই তিনি ভুল বুঝেছেন বলে দাবি করেন মমতা।

মমতা এ দিন অভিযোগ করেন, তাঁকে পুরীর মন্দিরে ঢুকতে দেয়নি বিজেপি, শিকাগো ছাড়াও দিল্লির সেন্ট স্টিফেন্স কলেজে বক্ততাও দিতে দেওয়া হয়নি। এ সবের জবাব দিতেই এ বার বিজেপি-র বিরুদ্ধে ভোট দেওয়ার জন্য আবেদন জানান মমতা।