মাস দুয়েক পর বাড়ি ফিরছিলেন। স্টেশনে ট্রেন থামা পর্যন্ত আর অপেক্ষা করতে পারেননি। রেললাইনে পড়ে গিয়ে দুটি হাত ও দুটি পা কাটা গেল এক যুবকের। বুধবার সকালে মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটল মালদহে।

আরও পড়ুন: বাঘ ঢুকেছে, মেছো বিড়াল দেখেই শোরগোল দুর্গাপুরে

আহত ওই যুবকের নাম ইসমাইল শেখ। বাড়ি, মালদহের ইংরেজবাজারের খাসকোল গ্রামে। মাস দুয়েক আগে গুজরাতের সুরাতে রাজমিস্ত্রির কাজ করতে দিয়েছিলেন ইসলাইল। বুধবার সকালে বাড়ি ফেরার পথে দুর্ঘটনার কবলে পড়লেন তিনি। ট্রেন তখন মালদহ টাউন স্টেশনের কাছাকাছি এসেছে, কিন্তু প্ল্যাটফর্মে পৌঁছায়নি। রথবাড়ির বুড়াবুড়ি এলাকায় চলন্ত ট্রেন থেকে ইসমাইল নামতে যান বলে জানা গিয়েছে। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, শরীরের ভারসাম্য রাখতে না পেরে কামরা থেকে রেললাইনে পড়ে যান ওই যুবক।  ট্রেনের চাকায় তাঁর দুটি হাত ও দুটি পা কাটা যায়।  ঘটনার পর অন্য যাত্রীরাই চেন টেনে ট্রেন থামান ও গুরুতর আহত অবস্থায়  ইসমাইল শেখকে উদ্ধার করেন। মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি তিনি। শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। খবর পেয়ে হাসপাতালে আসেন ইসমাইলের পরিবারের লোকেরা।

এর আগে হুগলির শেওড়াফুলিতে একই জায়গায় ট্রেন থেকে পড়ে গিয়ে প্রাণ হারান দু'জন। শেওড়াফুল ও বৈদ্যবাটি স্টেশনের মাঝে আপলাইনের পাশে রেলের একটি কেবিন দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে বলে জানা দিয়েছে।  এদিকে ভিড়ে ঠাসা লোকাল ট্রেনে কার্যত বাদুড়ঝোলা হয়ে যাতায়াত করতে হয় যাত্রীদের। নিত্যযাত্রীদের অভিযোগ, রেলের পরিত্যক্ত কেবিনে ধাক্কা লেগেই ট্রেন থেকে পড়ে যান ওই দু'জন।